নিজস্ব প্রতিনিধি, হুগলী: স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান উদযাপনকে কেন্দ্র করে আবারও রাজনৈতিক সংঘর্ষ বাঁধল হুগলীর আরামবাগ মহকুমায়। বলি হতে হল রাজনৈতিক কর্মীকে। কয়েকদিন আগেই শাসক দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে খুন হয়েছিল তাদেরই এক কর্মী। এবার তৃণমূলের হাতে বিজেপি কর্মীকে খুনের অভিযোগ উঠল খানকুলের নতিবপুর গ্ৰামে। যদিও এই বিজেপি কর্মীর মৃত‍্যুর সঙ্গে তাদের কোনও কর্মী যুক্ত নয় বলে দাবি করেছে তৃণমূল।

হুগলী জেলার খানাকুল ২ নং ব্লকের নতিবপুরের সাজুর ঘাট এলাকায় আজ সকালে সুদর্শন প্রামাণিক (৪০) নামে বিজেপি কর্মী খুন হয়েছে। অভিযোগ, স্বাধীনতা দিবস উযাপনের সময় বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে বচসা শুরু হয় তৃণমূল কর্মীদের। তারপরই তৃণমূলের লোকজন চড়াও হয় বিজেপি কর্মীদের উপর। ব‍্যাপক মারধর করা হয় বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মীদের। ঘটনার পরই রক্তাক্ত অবস্থায় লুটিয়ে পড়ে সুর্দশন প্রামাণিক। সঙ্গে আরও অনেকে আহত হয়। হাসপাতালে নিয়ে গেলে সুর্দশনকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। এরপরই এলাকা উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। পাল্টা লোক জমায়েত করে বিজেপি। দোষীদের গ্ৰেপ্তারের দাবিতে লাঠি সোটা হাতে রাস্তায় বেরিয়ে পরে মানুষ। পুলিশকে আটকে চলে বিক্ষোভ। পুলিশের উপর চড়াও হয়ে গাড়ি ভঙচুর করা হয় বলে অভিযোগ। উত্তেজিত জনতা ছত্রভঙ্গ করে মৃদ‍ু লাঠিচার্জ করে পুলিশ।

বিজেপির আরামবাগ সাংগঠনিক সভাপতি বিমান ঘোষ, পুরুলিয়ার সাংসদ জোর্তিময় মাহতো ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। সাংসদ বলেন, এই ঘটনায় যারা জড়িত তাদের ২৪ ঘন্টার মধ‍্যে যদি গ্ৰেপ্তার না করা হয়, তাহলে তারা অপরাধীদের ঘর থেকে বার করে নুন লঙ্কা মাখাবে। অন্যদিকে তৃণমূল জেলা সভাপতি দিলীপ যাদব তাদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তার বক্তব্য, বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরেই এই ঘটনা ঘটেছে। শাসকদলের কেউ এর সঙ্গে জড়িত নন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here