নিজস্ব প্রতিবেদক, কালিম্পং:‌ চলতি বছরের মে মাসে পাহাড়ি নদীতে র‍্যাফটিং করতে গিয়ে কালিম্পং জেলার মেল্লিতে মারা যান এক যুবক। তখনই প্রশ্ন উঠেছিল এই রাজ্যে অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টসের যথাযথ পরিকাঠামো আছে কিনা। সেই দুর্ঘটনার পরও যে প্রশাসনিক স্তরে কারো টনক নড়েনি সেটা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল ডেলোতে প্যারাগ্লাইডিং করতে গিয়ে দুর্ঘটনায় এক ব্যক্তির মৃত্যুর ঘটনা। শনিবার বিকালের দিকে কালিম্পং জেলার ডেলোতে প্যারাগ্লাইডিং করতে গিয়ে দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় নেপালের এক বাসিন্দার। তিনিই ওই প্যারাগ্লাইডারের চালক ছিলেন। গুরুতর আহত হন তার এক সঙ্গী। ঘটনার পরই জিটিএ’র তরফ থেকে প্যারাগ্লাইডিং বন্ধ করে দেওয়া হয়।

জানা গিয়েছে, পুরুষোত্তম টিমাসিনা ও গৌরব চৌধুরী শনিবার বিকালের দিকে প্যারাগ্লাইডিং করতে শুরু করে ডেলো থেকে। পুরুষোত্তম ছিল প্যারাগ্লাইডারের চালক, আর গৌরব ছিল পর্যটক। প্যারাগ্লাইডিংয়ের সময় গ্রাহাম হোমস স্কুলের কাছে হঠাৎই সেটি ভেঙে অনেক ওপর থেকে নীচে পড়ে যায়। তাতেই ঘটনাস্থলেই মারা যায় পুরুষোত্তম। গুরুতর আহত অবস্থায় গৌরবকে দ্রুত নিকটবর্তী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখান থেকে তাকে রেফার করা হয় শিলিগুড়ির এক বেসরকারি নার্সিংহোমে। দুর্ঘটনার পরই প্যারাগ্লাইডিং স্পোর্টস বন্ধ করে দেওয়া হয় জিটিএ’র তরফ থেকে। দুর্ঘটনার জেরে পরিকাঠামো ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন উঠলেও কালিম্পং প্যারাগ্লাইডিং সংগঠনের তরফে জানানো হয়, যথাযথ বিধি মেনেই সব কিছু চালানো হচ্ছিল। পুরুষোত্তম ও গৌরব দুইজনের মাথাতেই হেলমেট ছিল। কিন্তু অত ওপর থেকে পড়ার কারণেই হেলমেট কোন কাজ দেয়নি। মূলত মাথায় আঘাত লাগার কারনেই মৃত্যু হয় পুরুষোত্তমের। আর ওই সংগঠনের তরফে এটাও জানানো হয়েছে দুর্ঘটনার মূলে রয়েছে হুট করে বাতাসের গতিবেগ বেড়ে যাওয়া।

এদিকে দুর্ঘটনার পর আরও একটি চাঞ্চল্যকর বিষয় সামনে এসেছে যা নিয়ে বড় ধরনের বিতর্ক দেখা দিয়েছে। জানা গিয়েছে, পাহাড়ে অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টসের জন্য অনুমতি দেয় জিটিএ। কালিম্পংয়ে প্যারাগ্লাইডিংয়ের জন্য জিটিএ অনুমতিও দিয়েছিল। কিন্তু সেই অনুমতি ছিল ৬ মাসের জন্য, আর সেই সময়সীমা গতবছরই শেষ হয়ে যায়। তারওপর পাহাড়ের আন্দোলনের জন্য নতুন করে আর অনুমতি করানো হয়নি, করানো হয়নি লাইসেন্সের পুনর্নবীনকরণও। কার্যত খাতায় কলমে কালিম্পংয়ে বিনা কোন অনুমতিতেই চলছিল এই বিপদজনক অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here