ডেস্ক: ২০১৪ সালে দিল্লির মসনদে বসার পর একের পর এক রাজ্যে বিজয় রথ ছোটচ্ছে নরেন্দ্র মোদী নেতৃত্বাধীন বিজেপি৷ উত্তর-পূর্ব ভারত-সহ বিভিন্ন রাজ্যে কংগ্রেসকে সাফ করে বিজয় কেতন উড়িয়েছে গেরুয়া বাহিনী৷ বেশকিছু রাজ্যে আবার বিজেপির শরিকরা শাসন ক্ষমতায় রয়েছে৷ ঠিক সেই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে আরও একটি নির্বাচনের মুখোমুখি হতে চলেছে কংগ্রেস শাসিত কর্ণাটক৷ খুব স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি বলে পরিচিত দক্ষিণের এই রাজ্যে কী পদ্ম ফোটাতে পারবে মোদী-অমিত শাহ জুটি?যা নিয়ে ইতিমধ্যেই জোরদার চর্চা শুরু হয়ে গিয়েছে৷ বেশ কয়েকটি পেশাদার সংস্থা ওপিনিয়ন পোল করেছে৷ সেখানে যে চিত্র ফুটে উঠেছে তাতে বিজেপি মোদী-অমিত শাহের কপালে ভাঁজ পড়বে৷ অন্যদিকে, চওড়া হাসি দেখা যেতে পারে রাহুল গান্ধি-সব হিরোধীরে মুখে৷ বিখ্যাত পেশাদার সংস্থা C-Fore -এর সমীক্ষা বলছে, কংগ্রেসের হাতেই থাকছে কর্ণাটক বিধানসভা৷

দক্ষিণের এই বড় রাজ্যে শুধু ক্ষমতা ধরে রাখাই নয়, C-Fore-এর চিত্র বলছে, ২২৪ সংখ্যা বিশিষ্ট কর্ণাটক বিধানসভায় গতবারের চেয়েও বেশি আসন নিয়ে ক্ষমতায় আসতে চলেছে কংগ্রেস৷ C-Fore-এর সমীক্ষায় স্যাম্পেল সার্ভের আকার বেশ বড় মাপের৷ মার্চের ১ তারিখ থেকে ২৫ তারিখ পর্যন্ত করা এই প্রাক নির্বাচনী সমীক্ষায় C-Fore ১৫৪টি বিধানসভা কেন্দ্রের প্রায় ২২,৩৫৭ জন ভোটারের সঙ্গে কথা বলে তাদের মনোভাব বোঝার চেষ্টা করেছে৷ C-Fore এই সমীক্ষা চালাতে গিয়ে ২,৩৬৮টি বুথ চষে ফেলেছে৷ যার মধ্যে ৩২৬টি শহরাঞ্চল এবং ৯৭৭টি গ্রামীন এলাকা৷

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালে C-Fore-এর এই সমীক্ষা কার্যত একশো শতাংশো মিলে গিয়েছিল৷ গত বিধানসভা নির্বাচনে C-Fore বলেছিল, কর্ণাটকে ১১৯ থেকে ১২০টি আসন পাবে কংগ্রেস৷ ফলাফল বেরোনোর পর দেখা গেল ১২২টি আসন নিয়ে ক্ষমতা এল কংগ্রেস৷ এবার গতবারেরে চেয়ে আরও ৯ শতাংশো ভোট শেয়ার বাড়তে চলেছে সিদ্দরামাইয়ার কংগ্রেসের৷ এবার কংগ্রেস পেতে পারে ৪৬ শতাংশো ভোট৷ মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে রাজ্যের প্রায় ৪২ শতাংশো মানুষেরই পছন্দের ব্যক্তি হলেন বর্তমান কংগ্রেস মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া৷ ক্ষমতায় আসতে না পারলেও বিজেপির ভোট শতাংশো বাড়াও ইঙ্গিত মিলেছে এই সমীক্ষায়৷ বিজেপি পেতে পারে মোট ভোটের ৩১ শতাংশো৷ আর জেডি (এস)-এর ঝুলিতে যেতে পারে ১৬ শতাংশো ভোট৷ অন্যান্য পেতে পারে ৭ শতাংশো ভোট৷

এই সমীক্ষা অনুযায়ী এবার নির্বাচনে কংগ্রেসের আসন সংখ্যা গতবারের ১২২-এর চেয়ে বেড়ে হতে চলেছে ১২৬৷ বিজেপি পেতে পারে ৭০টি আসন৷ গতবার বিজেপি পেয়েছিল ৪০ টি আসন৷ অন্যদিকে, জেডি (এস)-এর আসন সংখ্যা গতবারের থেকে অনেকটাই কমার ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে৷ ২০১৩ সালে তাদের ঝুলিতে গিয়েছিল ৪০টি আসন৷ এবার সেটা কমে হতে পারে ২৭৷ এন্যান্যরা পেতে পারে একটি আসন৷

C-Fore-এর এই সমীক্ষায় রাজ্যের ৪৪ থাংশো মানুষেই বলেছে তাদের ভোট যাবে কংগ্রেসের পক্ষে৷ ৩৩ শতাংশো মানুষ জানিয়েছেন, তাঁরা ভোট দেবেন বিজেপিকে৷ ১৭ শতাংশো মানুষের পছন্দ জেডি (এস)-কে৷ আর ৬ শতাংশো মানুষের পছন্দের তালিকায় নেই এই তিন প্রধান রাজনৈতিক দল৷ মহিলাদের মধ্যে ৪৮ শতাংশো কংগ্রেসের পক্ষে রায় দেবেন বলে জানিয়েছেন৷ বিজেপি সমর্থন পাচ্ছে ২৯ শতাংশো মহিলার৷ জেডি (এস)-এর পক্ষে রয়েছেন ১৪ শতাংশো মহিলা ভোটার৷ ৮ শতাংশো জানিয়েছেন এই দলের মধ্যে কাউকেই তাদের পছন্দ নয়৷
শুধু তাই নয়, সমীক্ষায় বিভিন্ন বয়সের ভোটারদের মধ্যেও কংগ্রেসের জনপ্রিয়তা কর্ণাটকে সবচেয়ে বেশি৷ ১৮ থেকে ২৫ বছর বয়সী ভোটারদের ৪৬ শতাংশোই জানিয়েছে কংগ্রেসের পক্ষেই রয়েছে তারা৷ ২৫ থেকে ৩৫ বছর ভোটারদের ৪৭ শতাংশের প্রথম পছন্দ কংগ্রেস৷ ৩৬ থেকে ৫০ বছর বয়সীদের ৪৩ শতাংশো মানুষ কংগ্রেসকে সমর্থন করবে৷ আর পঞ্চাশোর্ধ মানুষ এখনও কংগ্রেসের উপরই ভরসা রাখছেন বলে জানিয়েছেন৷

বিভিন্ন ইস্যুগুলিতে কংগ্রেসের পক্ষেই রায় দিয়েছে কর্ণাটকের মানুষ৷ তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য ইস্যু ছিল, ‘মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে আপনি কাকে দেখতে চান?’ সেখানে জনপ্রিয়তার নিরিখে রাজ্যের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে উঠে এসেছে সিদ্দারামাইয়ার নাম৷

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here