মহানগর ওয়েবডেস্ক: শারীরিক অসুস্থতা একটু বেশীই বেড়ে যায় যখন কোনও প্রভাবশালী সুখের জীবন ছেড়ে জেলযাত্রা ঘটে। রাঁচির বিরসা মুন্ডা জেল হাসপাতালে গেলে সে প্রমাণ একেবারে চোখের সামনে জ্বলজ্বল করে ফুটে ওঠে। দুর্নীতি সহ নানান অভিযোগে জেলবন্দী এমন বহু ভিভিআইপি বন্দি রয়েছেন রাঁচির বিরসা মুন্ডা জেলে। কিন্তু জেলে কম তাঁদের বেশিরভাগ সময়টাই কাটে জেল হাসপাতালে। উদাহরণ হিসাবে অবশ্য সবার প্রথমেই আসে পশুখাদ্য কেলেঙ্কারিতে জেলবন্দি লালু প্রসাদ যাদবের কথা। ১৯ মাস হল রাঁচির বিরসা মুন্ডা জেলে বন্দি রয়েছেন লালু। তবে তার মধ্যে অসুস্থতার জন্য লালুর ১৭ মাসই কেটেছে জেল হাসপাতালের আদরযত্নে।

বিহারে বিপুল পরিমাণ পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি মামলায় ২৩ ডিসেম্বর ২০১৭ থেকে জেলবন্দি রয়েছেন আরজেডি নেতা লালুপ্রসাদ যাদব। এই কেলেঙ্কারিতে ৩ টি অভিযোগেই দোষী সাব্যস্ত তিনি। তবে টানা এই ১৯ মাসের কারাবাসে লালু সুস্থ ছিলেন মোট ২ মাস বাকি সময়টা কেটেছে তাঁর হাসপাতালে। এমনটাই জানাচ্ছে জেল কর্তৃপক্ষ। জেল সূত্রের খবর, আদালতে সাজা ঘোষণার পরপরই অসুস্থ হয়ে পড়েন লালু। ফলস্বরূপ তাঁকে ভর্তি হতে হয় দিল্লির এইমস হাসপাতালে। বেশ কয়েকমাস সেখানে কাটার পর ২০১৮ সালের মে মাসে তাঁকে ফিট সার্টিফিকেট দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ফলে আবার জেলে আসতে হয় তাঁকে।

এরপর থেকে অবশ্য বহুবার হাসপাতালে শয্যাশায়ী হয়েছেন লালু। তাঁর চিকিৎসা করা এক ডাক্তারের কথায়, ‘প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর মূলত ২ টি রোগ একটি হাইপার টেনশন ও দ্বিতীয়টি মধুমেহ। এছাড়াও অন্তত ১৫ ধরণের শারীরিক সমস্যা রয়েছে তাঁর।’ জেল কর্তৃপক্ষের কথায়, বর্তমানে রাজেন্দ্র ইন্সটিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্স (আরআইএমএস) হাসপাতালে রয়েছেন লালু। প্রতি মাসে সেখান থেকে তাঁর স্বাস্থ্যের রিপোর্ট পাঠানো হয় জেলে। কিন্তু ফিট সার্টিফিকেট আসে না কোনও পারে। প্রতিবারই আসে স্থিতিশীল। উনি সুস্থ হলেই জেলে নিয়ে আসা হবে ওনাকে। কিন্তু সুস্থই হচ্ছেন না লালু। দীর্ঘ কারাবাসে মাত্র ২ মাসের জন্যই জেলে নিজের ঘরে ছিলেন তিনি। বাকি সময়টা এয়ার কন্ডিশন সহ নানান সুবিধা সম্পন্ন বেসরকারি হাসপাতালেই কাটিয়েছেন তিনি। সম্প্রতি আবার নিজের বড় ছেলের বিয়ের জন্য প্যারোলে ছুটি নিয়ে বাড়িতেও ঘুরে এসেছেন তিনি।

উল্লেখ্য, শুধু লালু নন তালিকায় রয়েছেন আরও অনেকে। যেমন বিহারের প্রাক্তন মন্ত্রী কমলেশ সিং। দুর্নীতি মামলায় জেলবন্দি তিনি। অথচ একরকম জেলেই থাকতে হয়নি তাঁকে বছরের পর বছর কাটিয়ে দিয়েছেন হাসপাতালের বেডে। সিং ছাড়াও বিহারের প্রাক্তন মন্ত্রী ও বিধায়কদের এই তালিকাটা বেশ দীর্ঘ। যেমন এনস এক্কা, ভানু প্রতাপ শাহি, মধু কোড়া, চন্দ্র শেখর দুবে জেলে এরা গিয়েছেন ঠিকই কিন্তু আরআইএমএস হাসপাতালেই কেটেছে এদের কারাবাসের ৯০ ভাগ সময়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here