bengali news on chidambaram

মহানগর ওয়েবডেক্স: ক্ষুদ্র সঞ্চয় ও পিপিএফ–এ সরকারের সুদ কমানোর নেপথ্যে কোনও ‘নির্বোধ উপদেশ’ কাজ করেছে বলে মনে করেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরম। কেন্দ্রের কাছে অবিলম্বে এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে কংগ্রেসের এই বর্ষীয়ান নেতা বলেন, এই সময় জিডিপি’র দিকে না তাকিয়ে মানুষের জীবনের দিকে তাকানো উচিত।

চিদাম্বরম তাঁর টুইটার অ্যাকাউন্টে লেখেন, ”আমি জানি সরকার মাঝেমাঝেই নির্বোধ উপদেশ শুনে কাজ করে। কিন্তু আমি বিস্মিত হয়ে যাচ্ছি (ভেবে যে,) এটা কতটা নির্বোধ উপদেশ। পিপিএফ ও ক্ষুদ্র সঞ্চয়ে সুদ কমানোটা হয়তো ‘টেকনিক্যালি’ সঠিক, কিন্তু এই মুহুর্তে এটা করা সম্পূর্ণ ভুল।” এমন এক সংকটজনক সময়ে, যখন প্রত্যেকেই অত্যন্ত বিপর্যস্ত এবং আয়ের বিষয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন তখন এটা খুব স্বাভাবিক বহু মানুষ তাঁদের সঞ্চয়ের সুদের ওপর অনেকটাই নির্ভরশীল হবেন। সরকারের উচিত তাঁদের কথা ভেবে ৩০ জুন পর্যন্ত পুরনো সুদের হার অক্ষুণ্ণ রাখা বলে অভিমত প্রকাশ করেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী।

জিডিপি প্রসঙ্গে পি চিদাম্বরম জানান, পরপর তিনটি ত্রৈমাসিকে জিডিপি বৃদ্ধির হার ছিল যথাক্রমে ৫.৬, ৫.১ ও ৪.৭ শতাংশ। ২০১৯–২০ অর্থবর্ষে চতুর্থ ত্রৈমাসিকের বৃদ্ধি চার শতাংশের বেশি হওয়া সম্ভব নয়। ফলে বার্ষিক জিডিপি দাঁড়াবে ৪.৮ শতাংশে যা নিঃসন্দেহে যথেষ্ট হতাশজনক।

যদিও বর্তমান সময়ে জিডিপি–র বৃদ্ধির হার নিয়ে আলোচনা না করে করোনাভাইরাসের বৃদ্ধির হার নিয়ে আলোচনা করা উচিত বলে মনে করেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে পারলেই জিডিপি’র বৃদ্ধি ঘটবে বলে মনে করেন তিনি। একটি স্যোশাল নেটওয়ার্কিং ওয়েবসাইটে তিনি বলেন, ”আমার মনে হয় এখন আমাদের বৃদ্ধি নিয়ে দুঃশ্চিন্তা না করে মানুষের জীবন বাঁচানোর দিকে নজর দেওয়া দরকার।” কোভিড–১৯ অতিমারী’র প্রেক্ষিতে সরকার এখনও দ্বিতীয় দফার আর্থিক সহায়তার প্যাকেজ ঘোষণা না করায় স্পষ্টতই হতাশ কংগ্রেস নেতা। ২৫ মার্চ দেশ জুড়ে লকডাউন ঘোষণা হওয়ায় জনজীবনে যে বিপর্যয় নেমে এসেছে সেই আবহে দ্বিতীয় দফার আর্থিক সহায়তার প্যাকেজ ঘোষণা করা অবশ্যই উচিত ছিল বলে মনে করেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here