ডেস্ক: জঙ্গিদের বিরুদ্ধে অভিযান জারি রাখার জন্য এতকাল পর্যন্ত আমেরিকার থেকে অর্থ সাহায্য পেয়ে এসেছিল পাকিস্তান। কিন্তু সেই টাকা জঙ্গি হঠাতে নয় জঙ্গি পুষতেই ব্যবহার করে এসেছিল তারা। বিষয়টি নিয়ে হইচই শুরু হওয়ার পর ট্রাম্প সরকারের কু-নজরে পড়ে পাকিস্তান। বন্ধ হয় অর্থিক সহায়তাও। সেই ঘটনার পর এবার অন্তর্জাতিক অর্থ তছরুপ দমন সংস্থা এসটিএফের কুনজরে পড়ল ভারতের চির প্রতিদ্বন্দ্বী এই রাষ্ট্র। এসটিএফের তরফ থেকে ধূসর তালিকাভুক্ত করা হল পাকিস্তানকে। এদিকে আন্তর্জাতিক সংস্থার এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাল ভারত।

লস্কর, তালিবানের মতো জঙ্গিদের মাথায় তুলে রাখা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অভিযোগ, নির্বাচনের জন্য যে ফান্ড পাক সরকার পেয়ে থাকে তাঁর বেশিরভাগ অংশটাই যায় জঙ্গি সংগঠনের কাছে। নিজেদের দল তৈরি ও মারণাস্ত্র কিন্তেই জঙ্গিরা ব্যবহার করে সেই টাকা। পাকিস্তান যে সন্ত্রাসবাদকে মদত দিয়ে আসছে বহুকাল ধরে, আন্তর্জাতিক মঞ্চে একথা আগেই জানিয়েছিল ভারত। ফলে পাকিস্তান এসটিএফের ধূসর তালিকাভুক্ত হওয়ায়, এসটিএফকে সাধুবাদ জানিয়েছে বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র রবীশ কুমার। তিনি আরও বলেন, জঙ্গি দ্মনের জন্য পাকিস্তানকে সময়সীমা বেধে দেওয়া হোক।

এদিকে, আন্তর্জাতিক সংস্থার এই সিদ্ধান্তে যারপরনাই বিব্রত পাকিস্তান। সামনের পাকিস্তানের সাধারন নির্বাচন তাঁর আগে এই সিদ্ধান্তে কিছুটা হলেও কোণঠাসা পাক সরকার ও জঙ্গি সংগঠনগুলি। উল্লেখ্য, এতকাল ধরে পর্দার আড়ালে থাকার পর এবার সরাসরি পাক নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে শুরু করেছে জঙ্গিরা। লস্কর প্রধান হাফিজ সইদ ভোটে লড়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের স্বীকৃতি না পেলেও পরোক্ষে তাঁর অনুগামীরাই আল্লাহ-হু-আকবর নামে নতুন দল গড়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। বেনামে এই দলটি মুম্বই হামলার অন্যতম চক্রী জঙ্গি হাফিজ সইদের। এই দলের হয়ে নির্বাচনে লড়ছে প্রায় ২৬৫ জন জঙ্গি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here