ডেস্ক: পাক সরকারে বিরদ্ধে তাদের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-কে অপব্যবহারের অভিযোগ বহুবার তুলে এসেছে ভারত। কিন্তু চিরকালই সমস্ত অভিযোগ নস্যাৎ করে এসেছে ইসলামাবাদ। কিন্তু এবার একেবারে হাটে হাঁড়ি ভেঙে দিলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি তথা সেনাপ্রধান পারভেজ মুশারফ। প্রকাশ্যেই তিনি স্বীকার করলেন, তাঁর শাসনকালে জইশ-ই-মহম্মদের মতো জঙ্গি সংগঠনকে ব্যবহার করে ভারতে আক্রমণ চালানো সহ একাধিকবার বোমা নিক্ষেপ করেছিল পাকিস্তান।

টেলিফোনে এক পাকিস্তানি সাংবাদিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এই বিস্ফোরক তথ্যগুলি ফাঁস করেন পারভেজ মুশারফ। প্রখ্যাত পাক সাংবাদিক নাদিম মালিককে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মুশারফ বলেন, ‘পাক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই ভারতে বোমাবাজি করতে জইশ-ই-মহম্মদের সাহায্য নিয়েছিল। ওই সময়টা ছিল অন্যরকম (তখন পাক প্রেসিডেন্ট ছিলেন মুশারফ)। যেমন কাম করবে তেমন ফল পাবে, পাকিস্তানের গোয়েন্দারা তখন এই নিয়মে চলতেন। সেই কারণে তখন আমিও জইশের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয়নি।’ মুশারফের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, তিনি ক্ষমতায় থাকার সময় জইশের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি? সেই প্রশ্নের উত্তরেই উপরের কথাগুলি বলেন তিনি। একই সঙ্গে মুশারফ এমন দাবিও করেন যে, জইশ-ই-মহম্মদ নাকি হত্যা করার জন্য দু’বার পরিকল্পনাও করেছিল। কিন্তু তাদের সেই ছক ব্যর্থ হয়।

 

তবে বর্তমানে জইশের বিরুদ্ধে চলা ধরপাকড়কে সমর্থন করেছেন মুশারফ। তাঁর কথায়, ‘আমি সর্বদাই বলে এসেছি জইশ একটি জঙ্গি সংগঠন। তাই এই পদক্ষেপ ইতিবাচক। ওদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। আমি খুশি যে সরকার ওদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিচ্ছে। প্রসঙ্গত, ভারতীয় বায়ুসেনার পাল্টা প্রত্যাঘাতের পর থেকেই চাপ বেড়ে চলেছে পাকিস্তানের উপর। চাপের মুখে পাকিস্তান সরকার মাসুদ আজহারের ভাই আবদুল রউফ আসগর সহ নিষিদ্ধ সংগঠনের ৪৪ জনকে আটক করেছে মঙ্গলবার। পাক বিদেশমন্ত্রী আবার পাকিস্তানেই জইশ প্রধান মাসুদের উপস্থিতির কথা স্বীকার করে চাপ বাড়িয়েছেন সরকারের উপর। এ হেন অবস্থায় সেনার তরফে আবার পাল্টা বলা হচ্ছে, পাকিস্তানে নাকি জইশের কোনও অস্তিত্বই নেই। ফলে ঘরে বাইরে এখন চাপের মুখে জেরবার অবস্থা পাকিস্তানের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here