kolkata bengali news

ডেস্ক: নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে বহু আগেই। কিন্তু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় শাসক দলের বিপুল জয় নিয়ে জট কাটল না আজও। মঙ্গলবার শীর্ষ আদালতে পঞ্চায়েত মামলার শুনানিতে বিচারপতির ভর্ৎসনার শিকার হল রাজ্য নির্বাচন কমিশন। এদিনের শুনানিতে এটা স্পষ্ট যে পঞ্চায়েত নির্বাচনের মনোনয়নকে ঘিরে রাজ্যের বেশকিছু জায়গায় সমস্যা তৈরি হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের কাছে সেবিষয়ে তথ্য থাকলেও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়নি নির্বাচন কমিশন।

এদিনের শুনানিতে বিচারপতি জানান, রাজ্যের নির্বাচন কমিশন যদি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিত সেক্ষেত্রে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের সংখ্যাটা ৩৪ শতাংশে পৌঁছত না। এদিকে পরিস্থিতির বিচারে এই ৩৪ শতাংশ আসনে নতুন করে নির্বাচনের আশঙ্কা করছে নির্বাচন কমিশন। আদালতের এই রায়ের উপর ঝুলে রয়েছে ২০ হাজার ৭৬ প্রার্থীর ভবিষ্যৎও।

উল্লেখ্য, রাজ্যের নির্বাচনকে ঘিরে হিংসার অভিযোগে একাধিক মামলা উঠেছিল আদালতে। তাঁর মাঝে একটি ছিল ই-মেলে মনোনয়ন জমা। সিপিএম-এর দায়ের করা মামলার ভিত্তিতে ইমেলে মনোনয়ন জমা দেওয়াকে বৈধ বলে রায় দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ। এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে রাজ্য নির্বাচন কমিশন পাল্টা সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়। ১০ মে হাইকোর্টের সেই রায়ের ওপর স্থগিতাদেশ জারি করে সুপ্রিম কোর্টে। সেই সঙ্গে ৩৪ শতাংশ আসনে ফল ঘোষণার উপরও স্থগিতাদেশ জারি করে শীর্ষ আদালত। আজ সেই মামলার শুনানিতে কোণঠাসা নির্বাচন কমিশন। বুধবার ফের শুনানির নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here