ডেস্ক: হাইকোর্টের নির্দেশে সোমবার ফের মনোনয়ন জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হল গোটা রাজ্য। এখনও পর্যন্ত হিংসার বলি হয়েছেন ৩ ব্যক্তি। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অভিযোগের আঙুল উঠেছে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে। দল নির্বিশেষে আক্রান্ত হয়েছে বিজেপি, সিপিএম ও কংগ্রেস। উলট পুরাণও লক্ষ্য করা গিয়েছে বেশ কিছু জায়গায়। আক্রান্ত হতে হয়েছে তৃণমূলকেই।

শাসকদলের তরফ থেকে যদিও অশান্তি ছড়ানোর সমস্ত অভিযোগকে নস্যাৎ করে দেওয়া হয়েছে। উল্টে হিংসার জন্য বিজেপিকেই দুষেছেন ঘাসফুলের নেতামন্ত্রীরা। তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় এদিন বিকেলে সাংবাদিক সম্মেলন করে রাজ্যজুড়ে অশান্তির জন্য বিজেপিকেই দায়ি করেন। এদিন বিশেষভাবে তাঁর নিশানায় ছিলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বিগত কয়েকদিন যাবত দিলীপবাবুর উস্কানিমূলক মন্তব্যকে নিশানায় নিয়ে এদিন পার্থ বলেন, ”উনি (পড়ুন দিলীপ) কখনও বলছেন শ্মশান দেখা হবে। কখনও বলছেন অনাথ করে দেওয়া হবে। হার্মাদরাও এভাবে কথা বলেনি, যেভাবে তিনি কথা বলছেন। এবং এর পরিণতি হিসাবেই ঝাড়খণ্ড থেকে গুণ্ডাবাহিনী আনা হচ্ছে, সুপারি কিলারদের অর্থের বিনিময়ে নিয়োগ করা হচ্ছে।”

এদিনের সম্মলনে সিপিএমকেও একহাত নেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, ”সিপিএম তো সব জায়গা থেকেই পাততাড়ি গুটিয়েছে। ত্রিপুরা থেকেও গোটাতে হয়েছে। সবকিছু হারিয়েও এদের শিক্ষা হচ্ছে না। এরাও বিজেপির সুরে কথা বলছে, লেজুর হিসাবে থাকছে। আর এ রাজ্যের কংগ্রেস বিজেপির ল্যাজ ধরে বাঁচতে চাইছে।”

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here