ডেস্ক: আলাদা সংবিধান নিয়ে কাশ্মীর সরকারের সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের সংঘাত আগে থেকেই ছিল৷ কিছুদিন আগে অজিত ডোভালের কাশ্মীর সংবিধান বা ৩৫এ ধারা নিয়ে মন্তব্য জলঘোলা আরও বাড়িয়েছে৷ এবার ৩৫এ ধারা প্রত্যাহারের বিরোধীতা করে কাশ্মীরে আসন্ন পঞ্চায়েত এবং পুরসভা ভোট বয়কট করার সিদ্ধান্ত নিলেন জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা পিডিপি সভানেত্রী মেহবুবা মুফতি৷

এদিন দলীয় বৈঠকের পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে পিডিপি সভানেত্রী মেহবুবা মুফতি বলেন, ‘এই ধারা নিয়ে মামলা এখনও বিচারাধীন৷ ৩৫এ ধারা রক্ষার জন্য আমরা বহুদূর যেতে পারি’৷ তিনি আরও বলেন, এই সময়ে রাজ্যে পঞ্চায়েত এবং পুরসভা ভোট হলে রাজ্যের বিশেষ সাংবিধানিক পদ খর্ব হবে যা রাজ্যবাসীর মনে প্রভাব পড়বে৷ রাজ্যবাসীরা যাতে কোনওভাবেই ভুলদিকে প্রভাবিত না হন সেই কথা মাথায় রেখেই ভোট বয়কটের কথা ভাবা হয়েছে৷ এই ৩৫এ ধারা নিয়ে গত বুধবার ফারুক আবদুল্লার দল এনসি–ও পুরসভা এবং পঞ্চায়েত ভোট বয়কট করেছিল।

প্রসঙ্গত, এই ৩৫এ ধারা নিয়ে তীব্র বাদানুবাদে জড়িয়েছিল কাশ্মীর ও কেন্দ্রীয় সরকার৷ এমনকি এই ধারা তুলে নিলে ভারতের সঙ্গে কাশ্মীরের সম্পর্ক শেষ হয়ে যাওয়ারও হুমকি দিয়েছিলেন মেহবুবা মুফতি৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গেও কথা বলারও পরামর্শ দিয়েছিলেন মেহবুবা৷ এবার ৩৫এ ধারা ইস্যুতে ভোট বয়কটের বিষয়টি কি পরিবর্তন নিয়ে আসে তার দিকে নজর গোটা রাজনৈতিক মহলের৷ উল্লেখ্য, আগামী ১–৫ অক্টোবর জম্মু–কাশ্মীরে চার দফায় পুরসভা ভোট এবং ৮ নভেম্বর থেকে ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত আট দফায় পঞ্চায়েত ভোট হওয়ার কথা।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here