kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, খড়গপুর: ভূতের কথা পরিবারকে জানিয়ে দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছিল এক ব্যক্তির. তারপর থেকেই তার পরিবারের লোকেরা বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। তা থেকেই ভূতের গুজবে আতঙ্কিত এলাকাবাসী। ভয়ে ঘরদোর ছাড়ছেন অনেকেই। গ্রামে কোনও লোক অসুস্থ্য হলেও রাতে বের হতে চাইছেন না কেউই, চিকিত্সকদের কাউকে ডাকলেও তারাও যাচ্ছেন না গ্রামে। রাত তো বটেই, দিনেও কেউ বাড়ি থেকে বের হতে চাইছেন না একা একা। এই ঘটনা ভিন্ন কোন রাজ্যের নয়, খাস আমাদেরই বাংলার। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার খড়গপুর মহকুমার নারায়ণগড়ের রাইপুর এলাকায়।

সূত্রের খবর, গত কয়েকদিন আগে রাইপুর গ্রামে সমর বারিক নামে এক ব্যক্তি তার বাড়িতে ভূত এসেছে বলে বাড়ির অন্যান্য সদস্যদের জানিয়েছিলেন। এই ভূত বাড়ির সবাইকে মেরে ফেলবে বলেও তিনি সেদিন জানিয়েছিলেন। ঘটনাচক্রে তার কয়েকদিন পরেই ওই ব্যক্তির মারুতী দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়। এরপরে তার পরিবারে এবং গ্রামে ভূতের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পরিবারের এক সদস্যা পার্বতী বারিক জানান, ‘আমাদের গ্রামে ভূতের সত্যিকারে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। সেই সঙ্গে কারো জ্বর, কারো সর্দি- কাশি, মায় নানা রোগ-অসুখ লেগেই আছে। সন্ধ্যে হলে কেউ বাড়ি থেকে বের হচ্ছে না। এমনকি গ্রামের কোন ডাক্তারকে ডাকলেও তিনিও আসতে চাইছেন না। আমরা ভয়ে আতঙ্কে রয়েছি। অনেকে এর ভয়ে গ্রাম ছেড়ে আত্মীয়র বাড়ি বা অন্যান্য জায়গায় চলে যাচ্ছেন।’ এই পরিস্থিতিতে বারিকদের পরিবারও নিজেদের বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন।

এখন সন্ধ্যা হলেই শুনশান হয়ে যাচ্ছে নারায়ণগড়ের রাইপুর। দিনের বেলায় ছেলেমেয়েরা সিঁটিয়ে আছে বাড়িতে। গ্রামবাসীদের কথায় রাস্তা দিয়ে স্কুলে যেতেও ভয় পাচ্ছে তারা। গোটা গ্রাম জুড়ে আতঙ্ক। ভূত যেন তাড়া করে বেড়াচ্ছে তাদের। বন্ধু, আত্মীয়স্বজন আসতে চাইছেন না গ্রামে। এই পরিস্থিতিতে গুণীনের আশ্রয় নিয়েছেন বারিক পরিবারের সদস্যরা। গ্রামবাসীদের অনেকের বক্তব্য, অনেকেই গ্রামে বিভিন্ন রকমের অলৌকিক কান্ড কারখানা দেখতে পাচ্ছেন। নিজের চোখে দেখেছেন বেশ কিছু ভৌতিক কান্ড। যে কারনে সকলেই কমবেশি ভীত। বিষয়টি নিয়ে খোঁজ খবর নেওয়া শুরু হয়েছে স্থানীয় পুলিশের পক্ষ থেকেও। বিজ্ঞানমঞ্চের কয়েকজন নেতৃত্বের দাবি, মানুষের শুধু ভয় থেকে এই সমস্ত ধারনার সঞ্চার হয়েছে। আমরা শীঘ্রই গ্রামে গিয়ে মানুষের সঙ্গে কথা বলব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here