মহানগর ওয়েবডেস্ক: গতকাল লোকসভায় বাজেটের জবাবি ভাষনে তৃণমূলের তরফে বলা হয় কেন্দ্র সরকার বাজেটে পশ্চিমবঙ্গকে বঞ্ছনার মুখে রেখেছে। এদিন সংসদে একাধিক তৃণমূল সাংসদ এবিষয়ে সুর চড়িয়ে একহাত দেন কেন্দ্র সরকারকে। আজ জবাবি বিতর্কে রাজ্যগুলির প্রশ্নে শুরুতেই পশ্চিমবঙ্গকে নিশানা করেন রেলমন্ত্রী। তিনি বলেন, সমস্যা জমির। রেলের কাজের জন্য জমি অধিগ্রহণে সাহায্য করছে না পশ্চিমবঙ্গ সরকার। আর জমি না-পাওয়াতেই রাজ্যের রেল প্রকল্পগুলি স্তব্ধ হয়ে রয়েছে।

সংসদে খতিয়ান তুলে ধরে পীযূষ বলেন, পশ্চিমবঙ্গে ৫৬টি নতুন প্রকল্প চলছে। ১৬টি নতুন লাইন, ৪টি গেজ পরিবর্তন ও ৩৪টি ডাবলিং-এর কাজ চলছে। প্রকল্পের খরচ ৪২ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু রাজ্য সরকার জমি না-দেওয়ায় কিছু প্রকল্প ১৯৭৪-৭৫ সাল থেকে চালু রয়েছে! যেমন হাওড়া-আমতা, বরগাছিয়া-চাপাডাঙা প্রকল্প। মন্ত্রী বলেন, ১৯৮৩-৮৪তে ঘোষিত একলাখি-বালুরঘাট ১৬৩ কিলোমিটার প্রকল্পের ৭৬ কিলোমিটার ও ১৯৮৪-৮৫ সালে তমলুক থেকে দিঘা ১৬৮ কিলোমিটার প্রকল্পের ৮০ কিলোমিটার কাজ জমি জটে আটকে রয়েছে।

পীযূষের কথায়, ‘জমি না-দিলে কাজ হবে কী করে। জমি পেলে প্রকল্পের কাজ শেষ করতে টাকার অভাব হবে না।’ তাঁর দাবি , জমি চেয়ে আমি একাধিক বার পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে চিঠি দিয়েছি কিন্তু কোন হেলদোল নেই মমতা সরকারের। রেলমন্ত্রীর কথায়, ‘গত ১৫ জুন আমি দিদি (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়)-কে চিঠি দিয়ে কোন প্রকল্পের জন্য কত জমি প্রয়োজন, তা বিস্তারিত জানিয়েছি। তার পরও কোন প্রতিক্রিয়া আসেনি।’ রেলমন্ত্রীর জবাবের প্রত্যুত্তরে সরব হয়ে তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্ধ্যোপাধ্যায় বলেন মাননীয় মন্ত্রীর কাছে সর্বশেষ তথ্য নেই, দীঘা-তমলুক ট্রেন ছুটছে, মন্ত্রী যদি চান চড়ে আসতে পারেন। বালুরঘাট-একলাখি প্রকল্প শেষ। একই সঙ্গে তৃণমূল সাংসদ বলেন, সংসদকে ভুল তথ্যপেশ করছেন মাননীয় রেল মন্ত্রী।

সুদীপের কথা টেনে এনে সাংসদ সুপ্রিয়া বিধলেন রেলমন্ত্রীকে, ‘পশ্চিমবঙ্গে জমি জট রয়েছে বলে জানালেন রেলমন্ত্রী। তাঁর নিজের রাজ্য মহারাষ্ট্রে বিজেপি ক্ষমতায়। কিন্তু সেখানেও জমি জটে আটকে রয়েছে বুলেট ট্রেন প্রকল্প।’ সুপ্রিয়ার প্রশ্নে কার্যত অস্বস্তিতে পড়ে পীযূষ বলেন, ‘আমাদের সরকার সংবেদনশীল সরকার। আদিবাসীদের বুঝিয়ে সেখানে জমি নেওয়ার কাজ চলছে।’ অন্যদিকে তৃণমূলের সাংসদদের উদ্দেশে পীযূষ বলেন, ‘জমি জট কাটাতে সাহয্য করুন আপনাদের সাহায্য পেলে ঋণী থাকব।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here