narendra modi

মহানগর ওয়েবডেস্ক: হোলির রং যে আচমকা এতটা বেরঙিন হয়ে যাবে, তা হয়তো কল্পনাও করেননি রাহুল গান্ধীরা। সব সমীকরণ উল্টে দিয়ে কংগ্রেস ছেড়েছেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া। সঙ্গে নিয়ে গিয়েছেন ১৯ বিধায়ককে। ফলে মধ্যপ্রদেশের সরকার উল্টে যাওয়া কেবল সময়ের অপেক্ষা বলা যেতে পারে। একই সঙ্গে সিন্ধিয়াও আজ বা কালই বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন। তবে সিন্ধিয়াকে যে বিজেপি মাথায় তুলে রাখবে তা এখন থেকেই অনুমান করা যাচ্ছে।

সূত্রের খবর, আগামী ২৬ মার্চ রাজ্যসভা নির্বাচনে সিন্ধিয়াকে প্রার্থী করে পাঠতে পারে বিজেপি। যা নিয়ে এদিন দিল্লির বিজেপি সদর দফতরে এক হাই ভোল্টেজ বৈঠকে বসেন নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহ। সেই বৈঠকে সিন্ধিয়ার দলে যোগদান বিষয়ে এবং মধ্যপ্রদেশ দখলের রণনীতি নিয়ে আলোচনা হয় বলে খবর।

সিন্ধিয়াকে সমর্থন জানিয়ে কংগ্রেসের ২২ জন বিধায়ক ইস্তফা দিয়েই বিজেপির তরফে শুরু হয়েছে সরকার গঠনের তোড়জোড়। মাসকয়েক আগেই অবশ্য বিজেপির পিছনের দরজা দিয়ে সরকার গঠনের ব্যর্থ হয়েছিল মহারাষ্ট্রে। সেই কারণে এবার ধীরে চলো পন্থা আপন করেই এগোতে চাইছে বিজেপি। আইনের পথ ধরে কীভাবে কংগ্রেসের হাত থেকে ক্ষমতা ছিনিয়ে আনা যায় সেই ফন্দি তৈরি হচ্ছে বিজেপির অন্দরে। পুরোটাই খুবই সন্তর্পণে।

দলত্যাগী বিধায়কদের সঙ্গে সাক্ষাতের পর এদিন বিধানসভার স্পিকার বলেন, এবার যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার নিয়ম অনুসরণ করেই নেওয়া হবে। মধ্যপ্রদেশের রাজ্যপাল এই মুহূর্তে রয়েছেন লখনউতে। তবে রাজ্যের প্রত্যেক রাজনৈতিক গতিবিধি নিয়ে লাগাতার নজর রাখছেন তিনি। আগামী ১২ মার্চ তিনি রাজ্যে ফিরবেন বলে জানা গিয়েছি। তিনিও আপাতত আইনি পরামর্শ নিচ্ছেন বলে জানা যাচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here