kolkata bengali news

ডেস্ক: একের পর এক জনসভা করে কংগ্রেস তথা বিরোধীদের একহাত নিতে শুরু করেছন নরেন্দ্র মোদী। আর হাতে গোনা মাত্র কয়েকটা দিন, তারপরেই ভোটপর্ব শুরু। এরমধ্যে কোনও মুহূর্তই নষ্ট করতে চাইছে না বিজেপি। গতকাল ওড়িশা থেকে বিরোধীদের তোপ দাগেন প্রধানমন্ত্রী, আজ দাগলেন অসম থেকে।

উত্তর-পূর্বে এমনিতেই বিজেপির গেরুয়া ধার কমেছে। এনআরসি এবং নাগরিক সংশোধনী বিল নিয়ে বিজেপি বিরুদ্ধে সরব হয়েছে উত্তরপূর্বের মানুষ। তাই সেখানে ক্ষমতা ধরে রাখাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ বিজেপির কাছে। আর ক্ষমতা ধরে রাখতে গেলে যে বিরোধীদের বলে বলে একহাত নিতে হবে তা মোদীর ভালোমতোই জানা। এদিন অরুণাচল প্রদেশে ১টি ও অসমে ২টি জনসভা করলেন মোদী। সব জায়গা থেকেই ঝাঁঝালো স্বরে আক্রমণ শানালেন প্রধানমন্ত্রী। বললেন, কংগ্রেস ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ বলে প্রচার চালাচ্ছে। আদতে মানুষ যে চৌকিদারকে বিশ্বাস করছে তাতে ভয় পাচ্ছে বিরোধীরা। মোদী আরও বলেন, কংগ্রেস দেশের উন্নতির দিকে কোনও নজরই দেয়নি। শুধুমাত্র ১টি পরিবারের জন্য কাজ করে গেছে। এতে ভারতের মতো মহান একটি দেশ দুর্বলের তকমা পেয়েছে।

 

এরপরেই সার্জিক্যাল স্ট্রাইক এবং এয়ারস্ট্রাইক প্রসঙ্গ টেনে আনেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, বিজেপি সরকারের আমলেই শত্রুর ঘরের ভিতরে ঢুকে ভারত মারতে সাহস পেয়েছে। কংগ্রেসের আসলে এইসব স্বপ্ন ছিল। বিজেপির ক্ষমতায় গোটা দেশ খুশি, শুধু একটিমাত্র পরিবার এবং সন্ত্রাসবাদীরা অখুশি। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইতে বিজেপির পাশে গোটা দেশ, কিন্তু কংগ্রেসের ঘুম উড়েছে। মোদী আরও বলেন, কংগ্রেসের নেতারা জামিনে মুক্ত আছেন। তারপরেও তাঁরা বিজেপি সরকারকে খোঁচা দেওয়ার সাহস দেখান। তাঁরা এসি ঘরে বসে থাকেন, কর ফাঁকি দেন, কৃষকদের থেকে জমিও কেড়ে নেন। এরপরেও ‘চৌকিদার’কে কুকথা বলে যান। তাদের লজ্জা হওয়া উচিৎ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here