kolkata bengali news

ডেস্ক: ভারতীয় রাজনীতিতে নতুন ব্যাপার একেবারেই নয়। ইন্দিরা গান্ধী লড়েছেন, আসন্ন নির্বাচনে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীও দুটি আসনে লড়তে চলেছেন নির্বাচন। একটি আমেঠি থেকে অন্যটি কেরলের ওয়েনাদ। আর এই নিয়েই জাতীয় রাজনীতি তোলপাড় হচ্ছে। বিরোধীরা একের পর এক আক্রমণ শানিয়ে যাচ্ছে কংগ্রেস সভাপতিকে। অমিত শাহ, রবিশঙ্কর প্রসাদ থেকে শুরু করে প্রকাশ কারাত, সকলেই ঝাঁঝালো শব্দে কটাক্ষ করেছেন সনিয়া তনয়কে। সেই একই পথে হেঁটে রাহুলকে বিঁধলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মহারাষ্ট্রের এক জনসভা থেকে শুধু রাহুল বা কংগ্রেস নয়, রাজ্যের কংগ্রেস-এনসিপি জোটকেও একহাত নিলেন তিনি।

ধর্মের সাম্প্রদায়িক জিগির তুলে রাহুলকে আক্রমণ করলেন নরেন্দ্র মোদী। কংগ্রেস সভাপতির দুটি আসনে লড়া প্রসঙ্গে মোদীর বক্তব্য, রাহুল গান্ধী শুধুমাত্র হিন্দু আসন থেকে লড়ার ক্ষমতাই হারিয়েছেন, তাই এমন আসন থেকে লড়ছেন যেখানে হিন্দুরাই সংখ্যালঘু। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, সমগ্র দেশে ‘হিন্দু সন্ত্রাস’-এর জন্ম দিয়েছে কংগ্রেস সরকার। সেই সন্ত্রাস ছড়িয়ে দিয়ে ৫,০০০ বছর পুরনো হিন্দু সংস্কৃতিকে বদনাম করেছে কংগ্রেস।

শিবসেনার সঙ্গে বিজেপির জোট নিয়ে যে টানাপোড়েন ছিল তা এখন অতীত। বিতর্ক সরিয়ে রেখে সেনা-পদ্ম এক হতেই যেন বুকে আরও দম এসেছে মোদীর। তাই হয়তো রাজ্যের কংগ্রেস-এনসিপি জোট নিয়ে কড়া বার্তা দিতে থমকালেন না তিনি। তীব্র কটাক্ষের সুরে এই জোটকে ‘কুম্ভকর্ণ’ বললেন প্রধানমন্ত্রী। যুক্তি দিয়ে বোঝালেন, ক্ষমতায় থাকাকালীন কংগ্রেস-এনসিপি জোট ‘কুম্ভকর্ণ’-এর মতো ছিল, তাঁরা ৬ মাস ঘুমোতো, এবং পরের ৬ মাস সাধারণের থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়ে আবার ঘুমিয়ে পড়ত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here