ডেস্ক: বিচ্ছিন্নতাবাদই যে ভারতের প্রধান শত্রু সেকথা কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোকে পাশে নিয়ে সাফ বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। পঞ্জাবের খালিস্তানপন্থীদের নিয়েই তিনি যে এই কড়া বার্তা দিলেন তা বলার বাকি রাখে না। খালিস্তানি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের নিয়ে সেই বিতর্ক ফের দেখা দিয়েছে কানাডার প্রধানমন্ত্রীর এ বারের সপরিবার ভারত সফরেও। মুম্বইয়ে গত ২০ ফেব্রুয়ারি তোলা একটি ছবিতে কানাডার প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী সোফিয়া গ্রেগোয়ার ট্রুডোর সঙ্গে দেখা গিয়েছে দোষী সাব্যস্ত খলিস্তানি জঙ্গি জয়পাল অটওয়ালকে। তারপরই টনক নড়ে ভারতীয় গোয়েন্দাদের।

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর ভারত সফর প্রথম থেকেই বিতর্কের কেন্দ্রে ছিল। কেন্দ্রীয় সরকারের বিশেষ কোনও শীর্ষ স্থানীয় প্রতিনিধিকে সফরকালে ট্রুডোর সঙ্গে দেখা যায়নি। প্রথম থেকে আশঙ্কা করা হচ্ছিল, কারণটা সম্ভবত খালিস্তানিদের সঙ্গে ট্রুডোর ঘনিষ্ঠতা। এদিন মোদী সাফ জানিয়ে দেন, ”ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করে দেশের অখণ্ডতা ভাঙতে চাইলে বরদাস্ত করব না।” তিনি আরও বলেন, ”ধর্মকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে যারা ব্যবহার করে, তাদের কোনও জায়গা দেওয়া হবে না। ভারতের অখণ্ডতা, ঐক্য ও সার্বভৌমত্বকে চ্যালেঞ্জ করলে বরদাস্ত করা হবে না। সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে আমাদের একসঙ্গে এই লড়াই চালাতে হবে।”

অন্যদিকে, আজ দুই প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে দুই দেশের মধ্যে ৬টি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। বৈঠকে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য, প্রতিরক্ষা সম্পর্ক, অসামরিক ক্ষেত্রে পরমাণু সহযোগিতা, শিক্ষা, মহাকাশ ও জলবায়ু পরিবর্তনের মতো বিষয়গুলি বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গেও একদফা আলোচনায় বসেন কানাডার বিদেশমন্ত্রী।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here