ডেস্ক: হতে পারেন দেশের প্রধানমন্ত্রী, কিন্তু সোশ্যাল নেটওয়ার্ক মিডিয়ায় যথেষ্ট সক্রিয় নরেন্দ্র মোদী। ঠিক ‘টেক স্যাভি’ বলতে যা বোঝায়, তাই তিনি। সোশ্যাল মিডিয়ায় যে বর্তমান সময়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে জনসংযোগের সেতুবন্ধনী হিসাবে তা ভাল করেই বুঝে নিয়েছেন মোদী। তাই এবার দলের সকল সাংসদদের সোশ্যাল মিডিয়ায় আরও সক্রিয় হওয়ার দাওয়াই দিলেন প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে টুইটারে টার্গেটও বেঁধে দিলেন সাংসদদের। প্রত্যেকের অ্যাকাউন্টে যেন কমপক্ষে ৩ লক্ষ ফলোয়ার থাকে, সেকথা জানিয়ে দিলেন মোদী।

শুক্রবার বিজেপির সাংসদীয় কমিটির বৈঠকে প্রযুক্তির ব্যবহারের উপর ফের একবার জোর দিতে শোনা যায় প্রধানমন্ত্রীকে। মোদীর দাবি, সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করেই বিরোধী দলগুলির মিথ্যা জনসমক্ষে আনা সম্ভব। এদিনের বৈঠকে মোদী বলেন, মানুষদের সত্যি জানাতে প্রযুক্তির ব্যবহার আরও বেশি করে শুরু করুন। সরকারের বিরুদ্ধে বিরোধীদের চক্রান্ত সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছান দরকার।

সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে কীভাবে জনসংযোগ বাড়ানো সম্ভব এবং এর উপকারিতা বোঝাতে এদিন রীতিমতো ক্লাস নেওয়া হয় সাংসদদের। ৩ ঘণ্টার এই বৈঠকে এমন এক তথ্য উঠে আসে যা দেখে অবাক হয়ে যান খোদ প্রধানমন্ত্রী। দেশজুড়ে বিজেপি সাংসদদের মধ্যে এমন ৪৩ জন রয়েছেন যাদের সোশ্যাল নেটওয়ার্কে (টুইটার ও ফেসবুক) কোনও অ্যাকাউন্টই নেই। ৭৭ জন এমন সাংসদ রয়েছেন যাদের অ্যাকাউন্ট ভ্যারিফায়েড নয় (ব্লু টিক নেই)। এসব দেখার পরই সাংসদদের সোশ্যাল মিডিয়ায় আরও বেশি সক্রিয় হওয়ার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here