ডেস্ক: বোধহয় একটু বেশীই বাড়াবাড়ি হয়ে গিয়েছে। চারিপাশ থেকে বিরোধীদের একের পর কটাক্ষ বাণে এবার পিছু হঠল কেন্দ্র। বলা ভালো বাধ্য হলেন নরেন্দ্র মোদী। ভুয়ো খবর রুখতে কেন্দ্রীয় তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রী স্মৃতি ইরানির ভুয়ো খবর রোখা সংক্রান্ত বিতর্কিত নির্দেশিকা বাতিল করার নির্দেশ দিলেন দেশের প্রধানমন্ত্রী।

সম্প্রতি, ভুয়ো খবর রুখতে শাস্তির বিধান দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি। এই নির্দেশিকার পরেই সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি থেকে শুরু করে বিরোধীরা কেন্দ্রের সমালোচনার সরব হয়। চাপে পড়ে ঠিক তার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে উদ্যোগ নিয়ে বিষয়টি প্রেস কাউন্সিল অব ইন্ডিয়ার কাছে বিবেচনার জন্য পাঠানোর পরামর্শ দেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় (পিএমও) থেকে গতকালের বিজ্ঞপ্তিটি তুলে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রককে। পিএমও বলেছে, কোনটা ভুয়ো খবর, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে প্রেস কাউন্সিল ও ন্যাশনাল ব্রডকাস্টার অ্যাসোসিয়েশন বা এনবিএ।

উল্লেখ্য, কেন্দ্রীয় তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রকের তরফে সম্প্রতি নির্দেশ দেওয়া হয়, ফেক নিউজ অথবা জাল খবর ছড়ালে ৬ মাসের জন্য সেই সাংবাদিকের স্বীকৃতি বাতিল হবে। দ্বিতীয়বার একই ঘটনা ঘটালে ১ বছর এবং তৃতীয় বারও যদি ভুয়ো সংবাদ পরিবেশন করা হয় তবে সারাজীবনের মতো স্বীকৃতি বাতিল করা হবে সংশ্লিষ্ট সাংবাদিকের। ঠিক তার পরেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সরব হয় বিরোধীরা। কংগ্রেস নেতা আহমেদ প্যাটেল বলেন, ফেক নিউজের নাম করে সাংবাদিকদের এমন খবর পেশ করা থেকে বিরত করা হবে যা সরকারের স্বার্থ বিরোধী। তিনি আরও প্রশ্ন তুলেছেন, খবর আসল না নকল সেটা ঠিক করে দেবে কে? আহমেদ আরও আশঙ্কা প্রকাশ করেন যে, এই নিয়মের দুর্ব্যবহার করে এর দ্বারা সাংবাদিকদের নিগ্রহও করা হতে পারে।