নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় ভাঙড়ে পোলেরহাটে বোর্ড গঠন, জারি ১৪৪ ধারা

0

নিজস্ব প্রতিবেদক, ভাঙড়: বুধবার ভাঙড়ের পোলেরহাট ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন। আর তার জন্যেই পঞ্চায়েত সংলগ্ন ২০০ মিটার জুড়ে লাগানো হল ২৫টি সিসিটিভি ক্যামেরা। এলাকায় জারি ১৪৪ ধারা। মোতায়েন করা হয়েছে প্রায় ৫০০ পুলিশ। বোর্ড গঠন ঘিরে টানটান উত্তেজনা এলাকায়৷ অশান্তির আশঙ্কায় বন্ধ রাখা হয়েছে বহু স্কুল৷ দীর্ঘদিন ধরে টালবাহানার পর অবশেষে পোলেরহাট ২ নম্বর পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন হতে চলেছে৷ জমি রক্ষা কমিটি দাবি জানিয়েছে, আরাবুলের ছেলে হাকিমুলকে বোর্ডে রাখা যাবে না৷ তার জায়গায় তৃপ্তি বিশ্বাস নামে একজনের নাম প্রস্তাব করা হয় কমিটির প্রধান হিসেবে৷ প্রথমে তৃপ্তি বিশ্বাস জমি রক্ষা কমিটির প্রস্তাব অনুযায়ী প্রধান হতে রাজি হলেও পরে তিনি সিদ্ধান্ত বদল করেন৷ তাকে সিদ্ধান্ত বদল করতে চাপ দেওয়া হয়েছে এমনটাই দাবি জমি রক্ষা কমিটির৷

উল্লেখ্য ২০১৮ সালের মে মাসে পঞ্চায়েত ভোট হয়েছিল। সারা রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেস একরকম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় লাভ করলেও ব্যতিক্রম হয়েছিলো ভাঙড়ের পোলেরহাট ২ পঞ্চায়েত। যেখানে মোট ১৬টি আসনের মধ্যে ১১টি আসন ভাঙড়ের তাজা নেতা আরাবুল ইসলামের সৌজন্যে তৃণমূলের পকেটে এসেছিলো। বাকি পাওয়ার গ্রীড আন্দোলনকে ইস্যু করে ৫টি আসন জমি জীবিকা বাস্তুতন্ত্র ও পরিবেশ রক্ষা কমিটির নির্দল প্রার্থীরা জয়লাভ করেছিল। এলাকায় শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার অভিপ্রায়ে জমি কমিটির লোকজনেরা জেলাশাসকের দরবারে পৌঁছেছিল। স্থায়ী বোর্ড গঠন না করে প্রশাসন দিয়ে পঞ্চায়েত চালানোর সিন্ধান্ত নিয়েছিল সরকার। তারপর রাজ্য রাজনীতির সমীকরণে বদলেছে। জমি কমিটির খাস তালুক পোলেরহাট ২ নম্বর পঞ্চায়েত এলাকায় ২০১৯ লোকসভায় তৃণমূল কংগ্রেস প্রায় ২৫০০ ভোটে জয়লাভ করেছে। এর মাঝখানেই গত ১৯শে মে শেষ হয়েছে প্রশাসন দিয়ে পঞ্চায়েত চালানোর মেয়াদ।

সরকার থেকে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয় আগামী ২৫ শে জুন বোর্ড গঠন হবে। পাওয়ার গ্রীড বিরোধী আন্দোলনকারী এরপরেই হাইকোর্টের দারস্থ হয়। সিঙ্গেল বেঞ্চ ডিভিশন বেঞ্চ মামলা গড়ানোর পর অবশেষে গত ৬ই আগস্ট হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের রায়ে ১৪ই অগাস্ট স্থায়ী বোর্ড গঠনের নির্দেশ আসে। সেই নির্দেশ অনুসারে ভাঙড় ২ নম্বর ব্লক আধিকারিকরা তৎপর হয়। নোটিশ দেওয়া হয় বোর্ড গঠনের। নির্বিঘ্নে বোর্ড গঠনের জন্য নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা বলায়ের মধ্য মুড়ে ফেলা হচ্ছে গোটা এলাকা। বসানো হয়েছে সিসিটিভি ক্যামেরা। আঁটোসাঁটো এই নিরাপত্তা বলয়ের মধ্য শান্তিপূর্ণভাবে কি মিটবে সবকিছু সেদিকেই তাকিয়ে রাজ্য রাজনীতি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here