kolkata news
ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিনিধি: লকডাউন ভাঙার শাস্তি কান ধরে ওঠবোস! রবিবার এমনই চিত্র ধরা পড়ল ভাঙড়ের বিভিন্ন এলাকায়। এদিন লকডাউন ভেঙে পথে বেরনো যুবকদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চালায় পুলিশ। বাড়ি থেকে বের হওয়ার সন্তোষজনক কারণ দেখাতে না পারায় শাস্তি হিসেবে তাদের কান ধরে উঠবোস করানো হয়। মাঝরাস্তায় সর্বসমক্ষে পুলিশের সামনে কান ধরে ওঠবোস করে তবেই ছাড়া পায় ওই যুবকরা।

করোনা রুখতে ১৫ দিন কার্যত লকডাউনের নির্দেশিকা জারি করেছে রাজ‍্য সরকার। সকাল ৬টা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত বাজার, দোকান খোলা রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সরকারি নির্দেশকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে রবিবার ভাঙড়ের কয়েকটি যায়গায় সকাল ১০টার পরেও খোলা রইল বেশকিছু বাজার। নিয়মভঙ্গের অভিযোগে একাধিক জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।এদিন সকাল দশটা বাজতেই ভাঙড়ের বিভিন্ন এলাকায় অভিযানে নামে পুলিশ।

ভাঙড়ের কাশীপুর থানা এলাকায় ওসি সমরেশ ঘোষের নেতৃত্বে চলে ব্যাপক ধরপাকড়। সময়ের পরেও দোকান খুলে রাখার অভিযোগে বেশ কয়েকজন বিক্রেতাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার হন ক্রেতাদেরও অনেকে। পাশাপাশি ভাঙড়ের কলকাতা লেদার কম্পলেক্স থানার ওসি প্রশান্ত ভৌমিকের নেতৃত্বে কলকাতা পুলিশের টিম ভোজেরহাট,হাতিশালা সহ বামনঘাটা বাজারে অভিযান চালায়।এছাড়া ভাঙড় থানার পুলিশ ঘটকপুকুর বাজার সহ বাসন্তী হাইওয়েতে কড়া নজরদারি চালায়।

প্রথম দিনের লকডাউনে জটলা দেখলেই পুলিশ বাসিন্দাদের সরিয়ে দিচ্ছে। ভাঙড়ের বেশিরভাগ এলাকাতেই টহল দিচ্ছে পুলিশের গাড়ি। ভাঙড়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার মোড়গুলিতে দিনরাত এক করে পুলিশি অভিযান চলছে। লকডাউন ভেঙে যাঁরা বাইরে বের হচ্ছেন, তাঁদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। জরুরি প্রয়োজন বুঝলে তবেই মিলছে ছাড়। কিন্তু তারই মধ্যে কিছু যুবক নানা অছিলায় সাইকেল, মোটর সাইকেল নিয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। তাদের শায়েস্তা করতেই কান ধরে ওঠবোস করানো হচ্ছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে।রবিবার দুপুরে শোনপুর বাজারে বেশ কয়েকজন যুবককে কান ধরে ওঠবোস করায় পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, এদিন মোট ১৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশের এই ভূমিকাকে সাধুবাদ জানিয়েছে ভাঙড়ের সচেতন নাগরিকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here