নিজস্ব প্রতিবেদক, ইংরেজবাজার: ভোটের মুখে বিপুল পরিমাণ কার্তুজ উদ্ধার হল মালদা জেলার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে লাগোয়া কালিয়াচকে। বৃহস্পতিবার রাতে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ভারত বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী কালিয়াচক থানার চর অনন্তপুর এলাকার কামাত গ্রামে অভিযান চালায় কালিয়াচক থানার পুলিশ। অভিযান চালিয়ে এক অস্ত্রকারবারির বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ২১৩ রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করে পুলিশ। সেই সঙ্গে দুটি আগ্নেয়াস্ত্রও উদ্ধার হয়েছে। ওই অস্ত্র কারবারিকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

মালদা জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃতের নাম সিকিম শেখ। কামাত গ্রামের বাসিন্দা এই সিকিম সেখ মূলত কার্তুজ বিক্রির ব্যবসা করে। তার সঙ্গে কালিয়াচকের মজমপুরের অস্ত্র ব্যবসায়ীদের যোগাযোগ রয়েছে। কোথা থেকে কার্তুজ এনে বিভিন্ন জায়গায় সরবরাহ করতো সে বিষয়ের খোঁজে ধৃতকে দফায় দফায় জেরা করছে কালিয়াচক থানার পুলিশ। স্বাভাবিকভাবেই নির্বাচনের আগে এই অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে জেলার রাজনৈতিক মহলে। বিজেপির জেলা সম্পাদক অজয় গাঙ্গুলীর অভিযোগ, ‘এর আগেও দেখা গিয়েছে পঞ্চায়েত নির্বাচনে শাসকদল ব্যাপক সন্ত্রাস চালিয়েছিল। এবারও তারা সন্ত্রাস চালানোর উদ্দেশ্যে নিয়েছে। তাদের প্রশ্রয়েই এলাকাগুলিতে অস্ত্র কারবারীদের রমরমা হয়ে উঠেছে। যা সব অস্ত্র আর কার্তুজ উদ্ধার হয়েছে তা এই নির্বাচনে ব্যবহার হত। এতদিন পুলিশ এই অস্ত্র উদ্ধার করতে পারছিল না। কারণ তাদের ওপর রাজনৈতিক চাপ ছিল। নির্বাচন ঘোষণা হওয়ার পরই যখন নির্বাচন কমিশনের হাতে প্রশাসন চলে গেল ঠিক সেই সময়ে অস্ত্র উদ্ধার হয়ে গেল। এর থেকেই প্রমাণ হয় কারা এই অস্ত্রগুলি মজুত করার জন্য মদত যুগিয়েছিল।’

 

যদিও বিজেপি নেতার তোলা এই সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে তৃণমূলের জেলার কার্যকরী সভাপতি দুলাল সরকার বলেন, যে এলাকায় অস্ত্র উদ্ধার হয়েছে ওই এলাকার বিধায়ক যিনি তিনি বিজেপির। ওই এলাকার পঞ্চায়েতগুলিও বেশ কয়েকটি বিজেপির দখলে রয়েছে। আমরা কোন সন্ত্রাসে বিশ্বাস করি না। রাজ্য জুড়ে বিজেপি সন্ত্রাস চালাচ্ছে। কারা অস্ত্র জোগাতে মদত যুগিয়েছিল তা পুলিশ সঠিক তদন্ত করলেই প্রকাশ হয়ে যাবে। পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে, কোথা থেকে এগুলি সংগ্রহ করেছিল বা এর পেছনে আর কেউ রয়েছে কি না বা কার সঙ্গে এই কারবার সে চালাত সে বিষয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here