kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক ,বারুইপুর: ইটভাটার শ্রমিকের আড়ালে জলপথে মাতলা নদী ধরে বাংলাদেশ থেকে এসে কুলতলিতে এসেছিল বাংলাদেশি ডাকাত দল। উদ্দেশ্য ছিল, জলপথে মৎস্যজীবীদের নৌকায় লুঠ ,ছিনতাই সহ অন্য কোনও জায়গায় বড়সড় ডাকাতির ছক। রবিবার সকালে কুলতলির গোপাল গঞ্জ পঞ্চায়েত ঘাটে ডাকাত দল নৌকা করে আসতেই বারুইপুর জেলা পুলিশের স্পেশাল অপারেশান গ্রুপ ও কুলতলি থানার পুলিশ হাতে নাতে গ্রেফতার করে চার বাংলাদেশি ডাকাতকে। ধৃতদের নাম আকবর আলি গাজি , মহম্মদ আশিকুর রহমান , ইসমাইল সরদার, মহম্মদ আনোয়ার হোসেন সরদার। ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হল ৪ টি বড় পাইপগান ,২ টি ছোট পাইপগান ,১৮ রাউন্ড কার্তুজ। তাদের বাড়ি বাংলাদেশের সাতক্ষিরা, যোশর এলাকায়।

লোকসভার ভোটের আগে বারুইপুর জেলা পুলিশের এই অস্ত্র উদ্ধার ও বাংলাদেশি ডাকাত দল গ্রেফতারে বিরাট সাফল্য এল বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। প্রসঙ্গত, এর আগে বাসন্তীতে, কুলতলিতে, ক্যানিং ও জয়নগরে অস্ত্র উদ্ধার করেছিল বারুইপুর জেলা পুলিশ। গোপন সূত্রে খবর, নৌকা করে জলপথে বাংলাদেশ থেকে কেউ ঢুকছে। সেই মতো বারুইপুর জেলা পুলিশ সুপার রশিদ মুনির খানের নির্দেশে স্পেশাল অপারেশন গ্রুপের ওসি লক্ষিকান্ত বিশ্বাসের টিম সহ কুলতলি থানার পুলিশ রাত ২-৩০ থেকে ভোর ৩-৩০ মধ্যে অপারেশনে নামে। কুলতলির গোপাল গঞ্জ পঞ্চায়েত ঘাটে গিয়ে মাতলা নদীতে দেখা যায় একটি নৌকা আসছে। সেই মতো পুলিশের টিম মাতলা নদি ধরে বোটে নৌকার কাছে গিয়ে ঘিরে ফেলে। হাতে নাতে চারজনকে ধরা গেলেও অন্ধকারের সুযোগ নিয়ে অন্য চারজন পালিয়ে যায়। নৌকা থেকে উদ্ধার হয় প্রচুর বেআইনি অস্ত্রও।

পুলিশ জানায় , এই জায়গার স্থানীয় মৎস্যজীবীদের সঙ্গে যোগাযোগ করেই বাংলাদেশ থেকে এসেছিল। ইটভাটায় কাজ করার জন্য ধৃতরা ঢুকে আস্তানা গড়ে। পরে সুযোগ বুঝে তারা আরও দল ভারি করে সুন্দরবনের নদীতে মৎস্যজীবীদের নৌকায় ছিনতাই, লুঠ করে পাশাপাশি অন্য জায়গায় ডাকাতির ছকও কষে । পুলিশ আরও জানিয়েছে, সোনারপুরে সোনার দোকানে ডাকাতির সময়ও একই ঘটনা ঘটে। ধৃতদের রবিবার দুপুরে বারুইপুর মহকুমা আদালতে তোলা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here