রেলের চাকরির নামে প্রচুর টাকা খেয়েছেন মুকুল, পুলিশের নয়া মামলায় বিপাকে চাণক্য

0
kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: বড়বাজার দুর্নীতি মামলা নিয়ে এমনিতেই বেশ চাপে মুকুল রায়। এরইমাঝে আরও এক নয়া মামলা এসে পড়ল বাংলার রাজনৈতিক চাণক্য মুকুল রায়ের ঘাড়ে। রেলে চাকরি দেওয়া সহ রেলের কমিটিতে জায়গা করে দেওয়ার নামে একাধিক ব্যক্তির কাছ থেকে তিনি নাকি বিপুল পরিমাণ টাকা ঘুষ নিয়েছিলেন। চলতি বছরেই সরশুনা থানায় দায়ের হওয়া এই অভিযোগে মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে একাধিক ধারায় মামলা দায়ের করল পুলিশ।

পুলিশের তরফে জানা গিয়েছে রেলের চাকরি ও কমিটিতে জায়গা দেওয়ার নামে ৬০ লক্ষ টাকা দুর্নীতিতে মূল অভিযুক্ত হিসাবে প্রথমেই নাম রয়েছে মুকুল রায়ের। পাশাপাশি, রয়েছে আরও বেশ কয়েকজন বিজেপি নেতার নাম যারা মুকুলের সঙ্গেই তৃণমূল ছেড়ে পরে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। মুকুলের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ দায়ের করেছেন বেহালার বীরেন রায় রোডের বাসিন্দা এক ব্যবসায়ী। তাঁর দাবি, ২০১৫ সালে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে মুকুল রায় রাজ্যসভার সদস্য হওয়ার পর নিজার প্যালেসে মুকুলের সঙ্গে একদিন দেখা করেন তিনি। সেখানে আরও তিনজনের সঙ্গে আলাপ করিয়ে দেন মুকুল। এবং রেলের কমিটিতে যোগ দেওয়ার জন্য আবেদন জানানো হয়। এরপর নানান ভাবে বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করে দফায় দফায় ৬০ লক্ষ টাকা নেন মুকুল ও তাঁর ঘনিষ্ঠতা। শুধু তাই নয়, রেলে চাকরি পাওয়া যাবে এমন দাবি করা হয় ওই ব্যবসায়ীর কাছে। সেই অনুযায়ী, তিনি নাকি অন্তত ৫ জনের কাছ থেকে ৩ লক্ষ টাকা করে তুলে মুকুলকে দেন। বিনিময়ে মন্ত্রী সাংসদদের লেটারহেডে কিছু কাগজপত্রও দেওয়া হয় তাঁকে। কিন্তু চাকরি বা কমিটি কোনওটাই হয়নি। টাকাই ফেরত চাইলে নানান অজুহাতে তা এড়িয়ে যেতেন মুকুল রায়।

বিষয়টি নিয়ে সন্দেহ হওয়ায় এর জেরেই, থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ওই ব্যক্তি। পড়ে রেলের দফতরে গিয়ে খোঁজ নিয়ে তিনি জানতে পারেন মন্ত্রী ও সাংসদদের লেটার হেডে যেসব কাগজপত্র দেওয়া হয়েছিল সেগুলি সব জাল। এরপর মুকুল রায়কে বিষয়টি জানিয়ে টাকা চাইলে তাঁকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকি দেন মুকুল। পুলিশের কাছে এমনই অভিযোগ করেছেন ওই ব্যক্তি। তবে এবিষয়ে মুকুলের স্পষ্ট দাবি, ‘এমন অভিযোগ দায়ের হয়েছে কিনা বলতে পারব না। তবে যদি হয়ে থাকে তবে বলব, রাজনৈতিক ভাবে হেরে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মিথ্যা মামলায় আমাকে ফাঁসাতে এই সব চক্রান্ত চালাচ্ছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here