ডেস্ক: গোষ্ঠী সংঘর্ষে বেহাল অবস্থা শিল্প শহর আসানসোল ও রানীগঞ্জের। পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে আসানসোলের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছিলেন বাবুল। কিন্তু মাঝপথে পুলিশের বাধা পেয়ে ফিরে যেতে হয় এই সাংসদকে। বাধা পেয়েই সংবাদ মাধ্যমের সামনে নিজের ক্ষোভ উগড়ে দেন তিনি। কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করার বিপক্ষে রাজ্যের সিদ্ধান্তকে একহাত নিয়ে অশান্ত পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় সরকারকে আক্রমণ করেন তিনি।

সংবাদ মাধ্যমকে এদিন বাবুল বলেন, আসানসোলের পরিস্থিতি সামাল দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে প্রশাসন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং-এর সঙ্গেও কথা বলেছেন বলে জানান তিনি। পুলিশ বাবুলকে আটকালে রাস্তা থেকে নেমে পুলিশের সঙ্গে কথা ধ্বস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পড়েন তিনি। জোর করে পুলিশ ব্যারিকেড পেরিয়ে ঢুকতে চাইলে তখনও বাধাপ্রাপ্ত হন তিনি। বাবুলের দাবি, তিনি স্থানীয় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর স্বার্থেই যেতে চাইছিলেন।

অন্যদিকে, অশান্ত পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে আসানসোল যেতে গিয়ে বাধা পান বিজেপি মহিলা মোর্চা নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়। দুর্গাপুরে তাঁকে আটকে দেয় পুলিশ। লকেটের দাবি, পুলিশ কোনও কারণ ছাড়াই তাঁকে আটকে দেয়।

বিজেপি নেতা নেত্রীদের আসানসোল অভিযানকে পাল্টা আক্রমণ করেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি দাবি করেন, ‘সমাজে বিভাজন তৈরি করার চেষ্টা করে লাভ নেই। রামকে নিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা তোলার চেষ্টা চলছে। প্রশাসন এলাকায় শান্তি ফেরাবার চেষ্টা করছে। ওখানে ভিড় করলে কি শান্তি ফিরবে? বহিরাগতদের দিয়ে অশান্তি লাগানোর চেষ্টা চলছে।’ কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন প্রসঙ্গে পার্থবাবু বিজেপিকে আক্রমণ করে আরও বলেন, উত্তরপ্রদেশ, বিহারে অশান্তি হলে ওদের চিন্তা হয়না। কিছু নেতা ক্যামেরায় নিজেদের মুখ দেখাতে ওখানে ভিড় বাড়াচ্ছেন।’

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here