kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: হাওড়ায় এবার পুলিশকর্মীর মৃত্যু হল করোনাতে। গৌতম পট্টনায়ক (৪৬) নামে চ্যাটার্জিহাট থানার ওই সাব ইন্সপেক্টর মঙ্গলবার সকালে কলকাতার সিএমআরআই হাসপাতালে মারা যান। হাওড়া পুলিশ কমিশনারেটে এই প্রথম কোনও পুলিশকর্মীর মৃত্যু হল। গত পাঁচদিন আগে শরীরে জ্বর নিয়ে হাওড়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। সেখানে তার কোভিড ১৯ টেস্ট নেগেটিভ আসে। এরপর তিনি নিজেই হাসপাতাল থেকে চলে আসেন। অসুস্থতা না কাটায় এবং তিনি আরও অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে কলকাতার সিএমআরআই’তে ভর্তি করা হয় তিনদিন আগে। সেখানে তার করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। মঙ্গলবার সকালে তার মৃত্যু হয়। উল্লেখ্য, হাওড়া কমিশনারেট এলাকায় ইতিমধ্যেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বেশ কয়েকজন পুলিশকর্মী। কিন্তু, এই প্রথম মারা গেলেন কোনও পলিশকর্মী।

উল্লেখ্য, করোনা সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ায় উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং হাওড়ার নির্দিষ্ট কিছু এলাকায় কড়া করে লকডাউন জারি হতে চলেছে। আগামী বৃহস্পতিবার অর্থাৎ ৯ জুলাই বিকেল ৫টা থেকে রাজ্যের সব ব্রড কন্টেইনমেন্ট জোনে জারি হবে লকডাউন। তবে কতদিন তা চলবে সেই সম্পর্কে কোনও তথ্য জানানো হয়নি প্রশাসনের তরফে। প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে লাগু করার পর ১৪ দিন এই লকডাউন জারি রাখা হবে।

মঙ্গলবার বিকেলে এই মর্মে নির্দিষ্ট জেলাশাসকদের চিঠি পাঠিয়েছেন অতিরিক্ত মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। চিঠিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, লকডাউনের আওতাভুক্ত এলাকায় সব সরকারি ও বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকবে, অপ্রয়োজনীয় যাবতীয় কাজকর্ম বন্ধ থাকবে। পাশাপাশি যান চলাচল, জমায়েত, দোকানপাঠও বন্ধ থাকবে। উল্লেখ্য, বর্তমানে করোনা উপদ্রুত এলাকা দু’টি ভাগে চিহ্নিত করছে রাজ্য সরকার। এ (অ্যাফেক্টেড জোন) ও বি (বাফার জোন)। অতিরিক্ত মুখ্যসচিবের চিঠিতে বলা হয়েছে, এই দুই জোনকেই একসঙ্গে ব্রড কন্টেনমেন্ট জোন বলে চিহ্নিত করতে হবে। এই এলাকাতে কঠোরভাবে লকডাউন বলবৎ করতে হবে বলে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দুই ২৪ পরগনা ও হাওড়ার একাধিক এলাকা এই লকডাউনের তালিকায় রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here