kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক:  মহারাষ্ট্রে মহারাজনৈতিক তরজা তুঙ্গে৷ একমাসের বেশি সময় হয়ে গিয়েছে৷ তবু সেখানে এখনও পর্যন্ত স্থিতিশীল সরকার গড়া যায়নি৷ এই বিষয় নিয়ে বিজেপি, কংগ্রেস, শিবসেনা, এনসিপি সবাই সুপ্রিমকোর্টের দিকে তাকিয়ে৷ সোমবার একন সেখানে এই নিয়ে সওয়াল-জবাব চলছে৷ ফয়সালা হওয়ার সম্ভাবনা আছে৷ এদিকে ২২ নভেম্বর রাজ্যপালকে দেওয়া চিঠি বৈধ বলে জানিয়েছে সুপ্রিমকোর্ট৷ সেখানে স্পষ্ট শরদের ভাইপো দাবি করেছেন তিনি এনসিপির বিধানসভার পরিষদীয় দলনেতা৷ তাঁর সঙ্গে ৫৪ জন বিধায়ক আছে৷ অন্যদিকে ন্যাশনাল কংগ্রেস পার্টি(এনসিপি)র সুপ্রিমো শরদ পাওয়ার ভাইপোর নেতৃত্ব অস্বীকার করেছেন৷ রবিবারেই তিনি এনসিপির পরিষদীয় দলনেতা থেকে অজিতকে বহিষ্কার করেছেন৷ সেখানে নয়া পরিষদীয় নেতা করেছেন জয়ন্ত পাতিলকে৷ তিনি ৫২ জন বিধায়কের সমর্থতিত চিঠি মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল ভাগবৎ কোশিয়ারীর হাতে তুলে দিয়েছেন৷ শরদ শিবিরের দাবি, অজিত এনসিপি নয়, আসল দল হলেন তাঁরা৷তাঁরা কংগ্রেস ও শিবসেনার সঙ্গে জোট করে মহারাষ্ট্রের সরকার গড়বেন৷ তাঁদের সঙ্গে ১৫০ জন বিধায়ক আছেন বলেও দাবি করেন তিনি৷

এদিকে উদ্ধব ঠাকরের অজিত পাওয়ারকে ফের দলে পেতে মরীয়া৷ তিনি শরদের ভাইপোকে আড়াই বছরের জন্য মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী পদ ছেড়ে দিতেও রাজি৷ অন্যদিকে বিজেপি তাঁকে উপমুখ্যমন্ত্রী করেছে৷ ফড়নবিশকে পাঁচ বছরের জন্য মুখ্যমন্ত্রী করেছে পদ্ম শিবির ৷ এই নিয়ে তারা কোনওরকম আপশে যাবে না বলে প্রথম তেকেই জানিয়ে দিয়েছে৷ মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ছগন ভুজবলকে শরদ- উদ্ধব শিবির থেকে অজিতকে ফের বুঝিয়ে সুজিয়ে বিজেপির সঙ্গ ত্যাগের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সোমবার৷

চলিত বছরের ২১ অক্টোবর মহারাষ্ট্রে বিধানসভা ভোট হয়েছিল৷ ২৪ অক্টোবর ফর প্রকাশিত হয়েছিল৷ তাতে এনডিএ জোট( বিজেপি ও শিবসেনা)১৫৯ টি আসন পেয়ে সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যা পেয়েছিল৷ তবে তার পরে আচমকা শিবসেনা বিজেপির সঙ্গ ত্যাগ করেছিল৷ তাদের দাবি ছিল আড়াই বছর মুখ্যমন্ত্রীর পদ তাদের দিতে হবে৷ এই দাবি মানেনি বিজেপি৷ তারপর থেকেই মহারাষ্ট্রে সরকার গঠনের জট শুরু হয়েছে৷ যা ২৫ নভেম্বরেও শেষ হয়নি৷ এর মধ্যে মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি শাসন ৬ মাসের জন্য জারি করা হয়েছিল৷ পরে ২২ নভেম্বর তা প্রত্যাহারও করে নেওয়া হয়৷ বিধানসভায় সংখ্যার পরীক্ষা না দিয়েই শনিবার তরিঘড়ি সরকার গঠন করে পেলে বিজেপি৷ তাদের এই বিষয়ে সাহায্য করেন এনসিপি নেতা অজিত পাওয়ার৷ মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে ফের একবার শপথ নেন দেবেন্দ্র ফড়নবিশ৷ উপ মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেন এনসিপির অজিত পাওয়ার৷ এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে রবিবারে সুপ্রিমকোর্টে যায় শরদের এনসিপি, শিবসেনা ও কংগ্রেস জোট৷ রবিবারের পর সোমবারেও এই নিয়ে চূড়ান্ত রায় ঝুলিয়ে রাখল শীর্ষ আদালত৷ মঙ্গলবারে ফের এই মামলার শুনানি সকাল ১০টা থেকে হবে সুপ্রিমকোর্টে৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here