ডেস্ক: সুপার কাপ নিয়ে অচলাবস্থা মেটাতে অবশেষে পেয়ে গেলেন ফেডারেশন সভাপতি প্রফুল্ল প্যাটেল। বিদ্রোহী ক্লাবগুলোর সঙ্গে বৈঠকে বসতে অবশেষে রাজি হলেন তিনি। বৃহস্পতিবার ফেডারেশনের সচিব কুশল দাস বিদ্রোহী জোটকে মেইল করে জানান, আগামী ১০ থেকে ১৫ এপ্রিলের মধ্যে (সম্ভবত ১৪ এপ্রিল) আই লিগের দলগুলির সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি হয়েছেন প্রেসিডেন্ট। যদিও সেই বৈঠক কোথায় হবে তা এখনো ঠিক হয়নি।

আই লিগের ভবিষ্যৎ ও দেশের দুই লিগের সংযুক্তকরণ সহ একাধিক ইস্যুতে ফেডারেশন প্রেসিডেন্ট প্রফুল্ল প্যাটেলের সঙ্গে দেখা করতে চেয়ে চিঠি দিয়েছিল আই লিগের ক্লাবগুলি। কিন্তু সেই চিঠির জবাব দিচ্ছিলেন না প্রফুল্ল প্যাটেল। যার জেরে সুপার কাপ না খেলার সিদ্ধান্ত নেয় কোয়েস ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান সহ আই লিগের অধিকাংশ দল। তাঁদের দাবি না মানা পর্যন্ত সিদ্ধান্ত একই থাকবে, তাও স্পষ্ট করে দেওয়া হয়। অবশেষে কুশল দাসের মেইলের পর নিজেদের অবস্থান থেকে সরে আসে বিদ্রোহী জোট। তারাও কথা মতো ফের একবার সুপার কাপে খেলার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। এই জন্য আই লিগের ক্লাবগুলি ফেডারেশনকে অনুরোধ করেছে, যাতে সুপার কাপের সূচি নতুনভাবে প্রকাশ করা হয়।

 

অন্যদিকে, সুপার কাপ খেলা নিয়ে ইস্টবেঙ্গলের আদি কর্তাদের এক হাত নিলেন কোয়েস চেয়ারম্যান অজিত আইজ্যাক। এর আগে বুধবার সুপার কাপে খেলতে চেয়ে ফেডারেশনের কাছে আবেদন করেছিলেন ইস্টবেঙ্গলের আদি কর্তারা। তারা জানিয়েছিলেন, ক্লাবের ঐতিহ্যের কথা ভেবে ‘ইস্টবেঙ্গল প্রেসিডেন্ট একাদশ’ নামে সুপার কাপে অংশগ্রহণ করবে ক্লাব। এই ব্যাপারটি একেবারেই ভালোভাবে নেননি অজিত আইজ্যাক। এক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, ‘ক্লাব কর্তাদের এই পদক্ষেপ আসলে নাটক ছাড়া কিছুই নয়। রঞ্জি ট্রফিতে যেমন রাজ্য দল ছাড়া অন্য কোন দল খেলার সুযোগ পায় না, তেমনি সব সুপার কাপেও শুধুমাত্র আই লিগ ও আইএসএলের দলগুলি খেলতে পারে। ইস্টবেঙ্গল সভাপতি একাদশ নামে কোন দল এই কাপে খেলতে পারবে না। কোয়েস ইস্টবেঙ্গল ছাড়া অন্য কেউ সুপার কাপে খেলতে পারবে না।’

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here