বিশেষ প্রতিবেদন: হতে পারে ক্রিকেট কিংবদন্তী ডন ব্র্যাডম্যানের পরই টেস্টে শ্রেষ্ঠ গড় তাঁর। হতে পারে তিনি ওপেন করতে নামলে বিপক্ষ দলের বোলারদের মধ্যে থরহরিকম্প শুরু হয়। কিন্তু ইচ্ছাকৃত বল বিকৃতি ঘটিয়ে আপাতত এক বছরের জন্য নির্বাসনে স্টিভ স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার। এই এক বছর সময় ক্রিকেটের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক রাখতে পারবেন না এই দুই অজি। কিন্তু ক্রিকেট যে এদের রক্তে। এটা ছেড়েও থাকা সম্ভব?

না, একদমই সম্ভব না। তাই এবার খুব শিগগিরই হয়তো ভারতের জার্সি গায়ে মাঠে নামতে দেখা যেতে পারে স্মিথ-ওয়ার্নারকে। অসমর্থিত সূত্রের খবর অনুসারে, বল বিকৃতি কাণ্ডে এক বছর নির্বাসিত এই দুই ক্রিকেটার ভারতের হয়ে খেলতে চান। বিসিসিআই-এর কাছে বিষয়টি তারা জানিয়েছেন এবং ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডও তাদের হাতে ভারতীয় নাগরিকত্ব তুলে দেওয়ার প্রক্রিয়া ইতিমধ্যেই শুরু করে দিয়েছে। যদি সমস্ত কিছু প্ল্যানমাফিক এগোয় তবে এই বছরের শেষে স্মিথ-ওয়ার্নারকে সঙ্গে নিয়ে অস্ট্রেলিয়া সফরে যেতে পারে টিম ইন্ডিয়া। বিসিসিআই-এর তরফ থেকে করা একটি টুইট জল্পনা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

ফলে ভবিষ্যতে অজি জুটিকে ২০১৯-এ বিশ্বকাপেও খেলতে দেখা যেতে। এই দুই ব্যাটসম্যান ভারতীয় দলে এলে দলের ওজন যে কয়েক গুণ বেড়ে যাবে তা আলাদা করে বলার প্রয়োজন পড়ে না। কিন্তু ভারতের নাগরিকত্ব পেয়ে এরা টিম ইন্ডিয়ায় সামিল হলে একজন ওপেনার সহ এক মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানকে নিজের জায়গা হারাতে হবে। টপ অর্ডার নিয়ে এখনও কোনো ফয়সালা হয়নি। তবে মিডল অর্ডারে মনীশ পাণ্ডে অথবা কেদার যাদবের মতো ব্যাটসম্যানদের উপর যে স্মিথ নামক খাঁড়াটা নেমে আসবে তা নিশ্চিত ভাবে বলা যায়। তবে সূত্রের খবর, স্মিথ দলে এলেও বিরাট কোহলিকেই ক্যাপ্টেন হিসাবে দেখতে চাইছে বিসিসিআই।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ আজ ১ এপ্রিল। মহানগরের পাঠকদের রস বোধ এবং কৌতুকের উপর আস্থাশীল মহানগর পরিবার। তাই সবাইকে বোকা বানানোর এই দিনে আমরাও একটু মজা করলাম আপনাদের সঙ্গে। উপরের প্রতিবেদনটির সঙ্গে বাস্তবে কোনো মিল নেই। পাঠকদের নিখাদ মজা দেওয়ার স্বার্থে লেখা হয়েছে প্রতিবেদনটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here