kolkata news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: জল্পনা চলছিল অনেকদিন ধরেই। তবে রবিবার একটি টুইট করেই সেই সব জল্পনায় জল ঢেলে দিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূলের তরফে রাজ্যসভায় যাচ্ছেন না প্রশান্ত কিশোর, তা এদিনের টুইটেই স্পষ্ট হয়ে গেল। এদিন তৃণমূল সুপ্রিমো যে চারজনের নাম ঘোষণা করেছেন তারা হলেন, অর্পিতা ঘোষ, মৌসম বেনজির নুর, দীনেশ ত্রিবেদী এবং সুব্রত বক্সি। এই তালিকায় প্রশান্ত কিশোরের নাম না থাকায় রাজনৈতিক মহলে নতুন সমীকরণের জন্ম নিয়েছে।

ভারতীয় রাজনীতির ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোরকে দিনকয়েক আগেই বাইরের রাস্তা দেখিয়েছেন জেডিইউ সভাপতি নীতীশ কুমার। সেই সময় থেকেই এই জল্পনা শুরু হয়েছিল। মনে করা হচ্ছিল, প্রশান্ত কিশোর হয় তৃণমূল, অথবা অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টির হাত ধরে নিজের রাজনৈতিক গাড়ির চাকা গড়িয়ে যেতে পারেন। রাজ্যসভা থেকেই তিনি আগামী রাজনৈতিক জীবনের নতুন সূচনা করতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছিল। কিন্তু সেই জল্পনায় পূর্ণচ্ছেদ পড়ল বলা চলে।

এদিন রাজ্যসভায় প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করে মমতা লেখেন, ঘোষিত হওয়া প্রার্থীদের মধ্যে অর্ধেক নামই মহিলাদের। নারী দিবসে এই নিয়ে তিনি গর্বিত বলেও লেখেন মমতা। রাজ্যসভায় পশ্চিমবঙ্গের কোটায় ১৬টি আসন থাকে। এই আসনের পাঁচটিতে নির্বাচন হতে চলে। পাঁচের মধ্যে চারটিতেই প্রার্থী দেওয়া মানে এই চারজনের জয় একপ্রকার নিশ্চিত ধরেই এগোচ্ছে দল। তবে প্রশান্ত কিশোরের নাম না থাকা নিয়ে নানা মুনির নানা মত রয়েছে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশ বলছেন, প্রশান্ত কিশোর সম্ভবত নিজেই তৃণমূলের ছাপে রাজ্যসভায় যেতে চাননি। কেননা তিনি আড়ালে থেকেই চিরকাল কাজ করে এসেছেন। সামনে থেকে রাজনীতি করা তাঁর কাজ নয়। রাজনীতির রণকৌশল তৈরি করাই তাঁর কাজ। আরেকাংশ আবার বলছেন, তৃণমূল সুপ্রিমো কোনওভাবেই চান না প্রশান্ত কিশোর আর তাঁর দলের রাজনৈতিক সম্পর্কে সিলমোহর পড়ে যাক। এতে বিরোধীরা নতুন অস্ত্র পেয়ে যাবেন। সেই কারণে কিছুটা ইচ্ছাকৃতভাবেই প্রশান্ত কিশোরের নাম এড়িয়ে গিয়েছেন মমতা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here