kolkata bengali news

রক্তিমা দাস: ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোরকে এবার দেখা যাবে অন্য ভূমিকায়। সূত্রের খবর, করেনা আবহে এবার রাজ্যে নামছে ‘টিম পিকে’। উদ্দেশ্য একটাই, রাজ্যবাসীকে যত দ্রুত সম্ভব এই মারণ ভাইরাস থেকে মুক্তির পথ বাতলে দেওয়া। ‘টিম পিকে’-কে এই কাজের দায়িত্বভার তুলে দিয়েছেন খোদ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার এমনটাই জানা গিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস সূত্র মারফত।

সূত্রের খবর, রাজ্যে করোনা আবহে ‘ভোটকুশলী’র বদলে এবার পিকে-র ভূমিকা হবে ‘স্বাস্থ্যকর্মী’ হিসেবে। অনেকেই জানেন না, ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর রাষ্ট্রসংঘে স্বাস্থ্যকর্মী হিসাবে ১০ বছর কাজ করে এসেছেন। তাঁর সেই কাজের অভিজ্ঞতাকেই এবার বাংলার বুকে মারণ ভাইরাস মোকাবিলায় কাজে লাগাতে চাইছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। জানা গিয়েছে, পিকে মূলত খুঁজে বার করবেন পশ্চিমবঙ্গে কীভাবে করোনা ছড়াচ্ছে। এছাড়াও কতজন আক্রান্ত হচ্ছেন, কোন হাসপাতালে কয়জন ভর্তি আছেন, কতজনের টেস্ট হয়েছে, কোন কোন এলাকা থেকে বেশি করোনায় আক্রান্তের সন্ধান মিলছে এই পর্যালোচনা করবে ‘টিম পিকে’। যার নেতৃত্বে থাকবেন প্রশান্ত কিশোর।

উল্লেখ্য, দলনেত্রীকে মাথা ঠান্ডা রাখার পরামর্শই হোক কিংবা দলীয় কর্মীদের চা আড্ডার পরামর্শ, সবকিছুই প্রশান্ত কিশোরের মস্তিষ্ক প্রসূত। তবে এবার আর মস্তিষ্ক নয় প্রশান্ত কিশোরের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগাতে চাইছে দল। রাষ্ট্রসংঘে কাজ করায় এ দেশের স্বাস্থ্য পরিষেবা ও তার গলদ সম্পর্কে বেশ ভালই ওয়াকিবহাল পিকে। তাঁর সেই অভিজ্ঞতাকেই কাজে লাগিয়ে করোনার সঙ্গে যুদ্ধ করতে নামছে জোড়াফুল শিবির।

তৃণমূল সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই কলকাতায় করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে বেশ কিছু তথ্য সংগ্রেহের কাজ করছেন প্রশান্ত কিশোর। কলকাতাতে বসেই এই কাজে অনেকটা এগিয়ে ফেলেছেন তিনি। প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ হলেই কাজে নামবে ‘টিম পিকে’। জানা গিয়েছেন, তাঁর এই কাজে তাঁকে সঙ্গত করবেন দলের কর্মীদের পাশাপাশি রাজ্যরে স্বাস্থ্যকর্মীরাও।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here