sunayna and her story

মহানগর ওয়েবডেস্ক: গোটা বিশ্বজুড়ে আজকের দিনে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক নারী দিবস। আজকের দিনে কথা হচ্ছে তাদের নিয়ে যারা বহু প্রতিকূলতার মধ্যেও এগিয়ে চলেছেন, আর না থামার অনুপ্রেরণা আরও অনেক মহিলাদের দিয়ে যাচ্ছেন। যদি বলা হয়, একজন মহিলা গর্ভবতী অবস্থায় হাতে একে-৪৭ রাইফেল সহ পিঠে ২০ কেজির ব্যাগ নিয়ে নকশালদের বিরুদ্ধে লড়তে প্রতিদিন জঙ্গলে যাচ্ছেন, তবে কি আপনি বিশ্বাস করবেন?

বিশ্বাস করা কঠিন হলেও ছত্তিসগড়ের দান্তেওয়াড়ায় ডিআরজি দান্তেশ্বরীর দুঃসাহসী মহিলা কমান্ডর সুনয়না প্যাটেল মাসের পর মাস এই কাজটাই করে চলেছেন। মহিলা ক্ষমতায়নের সবথেকে বড় উদাহরণ স্থাপন করে চলেছেন তিনি। কর্তব্য পালনের নেশায় প্রত্যেকদিন একই ভাবে নকশালদের বিরুদ্ধে লড়তে বেরিয়ে পড়েন সুনয়না। মনে তাঁর কোনও ভয় বা ডর, কিছুই নেই। সবথেকে আশ্চর্যের বিষয়, গর্ভবতী হওয়ার পর অন্যান্য মহিলারা যেখানে অতিরিক্ত সাবধানতা অবলম্বন করেন, সেখানে পুরোপুরি উল্টো পথে হেঁটেছেন তিনি। সুনয়নার গর্ভে সন্তান আসার পর তাঁর কাজের জেদ ও ক্ষমতা যেন আরও বেড়ে গিয়েছে।

গোটা দেশে নকশাল প্রভাবিত যত জায়গা রয়েছে, তার মধ্যে সবার প্রথমেই নাম আসে দান্তেওয়াড়ার। বছর খানেক আগে এই দান্তেওয়াড়ায় এক নকশাল হামলায় বহু জওয়ান প্রাণ হারিয়েছিলেন। সেই স্মৃতি তাঁর মনে টাটকা রয়েছে, কিন্তু সাহস টলাতে পারেনি। এখনও নদী-নালা, জঙ্গল, খাল-বিল পেরিয়ে পায়ে হেঁটে নকশাল বিরোধী অপারেশনে শামিল হন তিনি।

সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে সুনয়না জানিয়েছেন, কাজে যোগ দেওয়ার এক মাস পরই তিনি গর্ভবতী হয়েছিল। কিন্তু কাউকে তখন জানাতে চাননি। কারণ নকশাল দমন অপারেশনে তিনি যেতে চাইতেন। যদি সুনয়না বলে দিতেন যে তিনি গর্ভবতী, তবে নকশাল দমন অপারেশনে যাওয়া তাঁর বন্ধ হয়ে যেতে পারত। সেই কারণে গর্ভবতী হওয়ার প্রায় সাড়ে ৬ মাস পর আধিকারিকদের এই কথা জানান তিনি। তবে জানানোর পরও বন্দুক হাতে নকশাল দমন বন্ধ হয়নি, কাজের ইচ্ছাই তাঁকে এখনও ছুটিয়ে চলেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here