ডেস্ক: এই প্রথম বার বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসের বাইরে সমাবর্তন অনুষ্ঠান করে নজির গড়ল প্রেসিডেন্সি। ছাত্রছাত্রীদের ছাড়াই নন্দন থ্রি’তে অনুষ্ঠিত হল প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠান। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে উপাচার্য অনুরাধা লোহিয়ার মুখ থেকে ভেসে এল অভিমানের সুর। তিনি বললেন, ‘কাল থেকে প্রেসিডেন্সি স্বাভাবিক থাকবে। কেউ আটকালে ক্যাম্পাসে ঢুকব না। তারপর যা হয় দেখা যাবে।’ ছাত্র বিক্ষোভের জেরে বিগত একমাস ধরেই বেশ চাপের মুখে আছেন উপাচার্য। এই প্রথম সংবাদ মাধ্যমের সামনে অভিমান প্রকাশ করলেন অনুরাধা লোহিয়া।

দীর্ঘ একমাস ধরেই প্রেসিডেন্সির ছাত্রছাত্রীরা হিন্দু হস্টেলের দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেছিল। তাদের দাবি একটাই সংস্কারের কাজ শেষ করে দ্রুত তাদের হাতে হস্টেল তুলে দেওয়া হোক। আর বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে এই দাবি না মানা পর্যন্ত তারা ক্যাম্পাসটাকেই হোস্টেল হিসাবে ব্যবহার করবে বলে সাফ জানিয়েছিল। সোমবার সমাবর্তনের অনুষ্ঠানও এই ছাত্রবিক্ষোভের কারণেই নন্দন থি’তে অনুষ্ঠিত হয়। এই অনুষ্ঠানের দিন ছাত্ররা ফের বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটি প্রবেশদ্বার আটকে বিক্ষোভ দেখায়। যার কারণে মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের গভর্নর কমিটির বৈঠকও ছিল। কিন্তু এই ছাত্রবিক্ষোভের কারণেই বিশ্ববিদ্যালয়ের গেট থেকেই ফিরে যান উপাচার্য। বাতিল করা হয়েছে বৈঠক।

হিন্দু হস্টেল সংস্কার প্রসঙ্গে উপাচার্য লোহিয়া বলেন, ‘হস্টেল শুধুমাত্র একটা পরিষেবা মাত্র। প্রেসিডেন্সির ছাত্রছাত্রীরা হস্টেল দেখে পড়তে আসেনি, তারা বিশ্ববিদ্যালয় দেখে এসেছে। এই কথাটা ছাত্রছাত্রীদের মনে রাখতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয় চুপ করে বসে নেই, তারা সরকারকে সমস্যার কথা জানিয়েছে। সরকারের তরফে বিকল্প হস্টেলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। শুধু তাই নয় নিখরচায় পরিবহণের ব্যবস্থাও করা হয়েছে। তা স্বত্বেও ছাত্রছাত্রীরা শান্ত হননি।’ উপাচার্য এদিন আরও বলেন, হিন্দু হস্টেলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। প্রযুক্তির কারণেই এই কাজে বিলম্ব হচ্ছে। যতক্ষণ না সংস্কারের কাজ সমাপ্ত হচ্ছে ততক্ষণ ছাত্রছাত্রীদের ওই হস্টেলে পাঠানো যাবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here