arvind kejriwal story 647 071317040329 0
arvind kejriwal story 647 071317040329 0

ডেস্ক: বিরাট ধাক্কা খেল অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর দলের ২০ জন বিধায়কের সদস্যপদ বাতিল হয়ে গেল। লাভজনক পদে বিধায়কদের বসানোর জন্য সৃষ্টি হওয়া বিতর্ক নিয়ে রাষ্ট্রপতির দ্বারস্থ হয় নির্বাচন কমিশন। কমিশনের সুপারিশে এদিন শিলমোহর দিয়ে আপ-এর ২০ জন বিধায়কের সদস্যপদ বাতিল করলেন রাষ্ট্রমন্ত্রী। ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল জানিয়ে দিয়েছেন রাষ্ট্রপতির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হবে তারা।

সুপ্রিম কোর্টে যাওয়া ছাড়া অবশ্য আর কোনও রাস্তাও খোলা নেই আম আদমি পার্টির সামনে। যদিও সোমবার এই নিয়ে হাইকোর্টে শুনানি রয়েছে। রাষ্ট্রপতির শিলমোহরের পর মনে করা হচ্ছে হাইকোর্টের সিদ্ধান্তও আপ-এর বিপক্ষেই যাবে। এই অবস্থায় সুপ্রিম কোর্ট ছাড়া আর কোনও উপায়ও থাকবে না তাদের কাছে। উল্লেখ্য, হাইকোর্টও যদি আপ-এর বিপক্ষেই রায় দেয় তবে খুব শিগগিরি দিল্লিতে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে।

২০১৫ সালে প্রশান্ত পটেল নামে এক আইনজীবী রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগে আপ বিধায়কদের সংসদীয় সচিব পদে নিয়োগ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন, যেখান থেকেই এই বিতর্কের সূত্রপাত হয়। তাঁর দাবি ছিল, সংসদীয় সচিবের পদে রয়েছেন আপের ২১ জন বিধায়ক। সেখান থেকে বিভিন্ন ধরনের সুবিধা পাচ্ছেন তাঁরা। সংবিধান অনুযায়ী, ‘অফিস অব প্রফিট’ অর্থাৎ কোনও জনপ্রতিনিধি লাভজনক সরকারি পদে বসতে পারবেন না। কিন্তু দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়াল ২০১৫-র মার্চে ওই বিধায়কদের সংসদীয় সচিব পদে নিয়োগ করেন। আপ যুক্তি দেখায়, পদটি লাভজনক নয় কারণ এ থেকে কোনও আর্থিক প্রাপ্তি হয় না। তবে নির্বাচন কমিশনের এহেন সুপারিশে শোরগোল শুরু হল দিল্লি রাজনীতিতে। তারপরই রাষ্ট্রপতির দ্বারস্থ হয় নির্বাচন কমিশন।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here