news bengali kolkata
Highlights

  • ২ দিন ধরে বন্ধ পঠন-পাঠন, মিড-ডে মিল
  • পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনা ২ নম্বর ব্লকের হুড়হুড়িয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘটনা
  • অভিযুক্ত স্কুলের শিক্ষক শেখ ফারুক পাঠান

নিজস্ব প্রতিবেদক, চন্দ্রকোনা: স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের শ্লীলতাহানির অভিযোগে উত্তেজনা ছড়িয়েছে চন্দ্রকোনায়। এর জেরেই দুইদিন ধরে বন্ধ রয়েছে স্কুলের পঠন পাঠন। বন্ধ মিড-ডে মিল।

স্থানীয় গ্রামবাসী, স্কুলের শিক্ষক ও গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান আলোচনায় বসলেও মেটেনি জট। এলাকাবাসীর দাবি, অবিলম্বে স্কুলের শিক্ষককে অন্যত্র পাঠাতে হবে ও শাস্তি দিতে হবে। উত্তাল পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনা ২ নম্বর ব্লকের হুড়হুড়িয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়।

অভিযোগ, স্কুলের শিক্ষক সেখ ফারুক পাঠান স্কুলের ছাত্রীদের সঙ্গে মাঝেমধ্যেই নোংরামি করে।  অভিভাবকরা তা জানতে পারলে মঙ্গলবার স্কুল চত্বরে এসে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন গ্রামবাসীরা। সেদিনের মতো বন্ধ হয়ে যায় স্কুলের পড়াশোনা। পরের দিন বুধবার দশটা নাগাদ স্কুলে আসেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক থেকে ছাত্রছাত্রীরা। স্কুল শুরু হওয়ার ঠিক কিছুক্ষণ পরেই স্কুল চত্বরে জমায়েত হয় গ্রামবাসীরা। তাদের দাবি, অবিলম্বে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিচার না হওয়া পর্যন্ত স্কুল বন্ধ রাখতে হবে।

উত্তেজনা চরমে পৌঁছালে পড়ুয়াদের বাড়ি পাঠিয়ে দেন প্রধান শিক্ষক। স্কুল চত্বরে এসে উপস্থিত হন এলাকার পঞ্চায়েত প্রধান ইসমাইল খান। আলোচনাতেও মেটেনি জট। স্কুলের প্রধান শিক্ষক দেবাশীষ দে বলেন, ‘কিছু অভিভাবক বিষয়টি আমাকে জানিয়েছে  কিন্তু একজন শিক্ষক যে এধরনের কাজ করতে পারে তা আমাদের কল্পনায় ছিল না। নজরেও আসেনি এই ধরণের কিছু। বিষয়টি আমরা ব্লক প্রশাসনে জানিয়েছি।’ অভিযুক্ত স্কুলের শিক্ষক শেখ ফারুক পাঠান বলেন, ‘সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন, আমি পড়ুয়াদেরকে সন্তানের মতো স্নেহ  করি।’ এই বিষয়ে চন্দ্রকোনা ২ নম্বর ব্লকের বিডিও শাশ্বত প্রকাশ লাহিড়ী বলেন, ‘ঘটনার কথা শুনেছি দ্রুত বিষয়টি দেখা হবে। এই বিষয়ে এখনো পর্যন্ত কোথাও কোনো লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়নি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here