kolkata news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: বুধবার থেকে ফের শহরে শুরু হয়েছে অটো চলাচল। সরকারি বাস পরিষেবার পরিধিও বাড়ানো হয়েছে। ওই দিন থেকেই কলকাতা, দূর্গাপুর, আসানসোল ও শিলিগুড়ি থেকে চালু হয়ে গিয়েছে রাজ্য সরকারের সিটি বা শহরতলি, স্বল্পপাল্লা ও দূরপাল্লার বাস পরিষেবা। সব জায়গায় ২০ জন যাত্রী নিয়েই রাজ্যজুড়ে চলতে শুরু করে দিয়েছে সরকারি বাস। যাত্রীর সংখ্যাও বাড়ছে ক্রমশ। আর এর ফলে রক্তচাপ বেড়ে গিয়েছে বেসরকারি বাস মালিকদের। তাই অনড় অবস্থান থেকে সরে এসে ফের নতুন ভাড়ার হার সহ সরকারের কাছে বাস চালানোর প্রস্তাব দিয়েছে বেসরকারি বাস মালিক সংগঠন।

বাস মালিক সংগঠ জয়েন্ট কাউন্সিল ওই বাস সিন্ডিকেটের দেওয়া ওই সংশোধিত প্রস্তাবে বাসের ন্যূনতম ভাড়া ১৪ টাকা করা হয়েছে। অর্থাৎ বাসে উঠলেই যাত্রীকে ভাড়া দিতে হবে ১৪ টাকা। ওই ভাড়ায় তিনি দু’কিলোমিটার রাস্তা যেতে পারবেন। তারপর প্রতি কিলোমিটারে যাত্রীদের পাঁচ টাকা করে দিতে হবে। অর্থাৎ কেউ যদি তিন কিলোমিটার যান তাঁকে দিতে হবে ১৯ টাকা। চার কিলোমিটার গেলে গুনতে হবে ২৪ টাকা। এই হিসাবে কোন যাত্রী হাওড়া থেকে ধর্মতলা গেলে বাসের ভাড়া পড়বে ৩০ টাকার বেশি। বাস সিন্ডিকেটের তরফে আরও বলা হয়েছে, এখন বাস চালানো হবে নির্দিষ্ট কিছু এলাকায়। সেগুলি হল, কলকাতা, হাওড়া, উত্তর ও দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার শহরাঞ্চল, আসানসোল এবং দুর্গাপুর। অর্থাৎ গ্রামীণ বাংলায় বাস চালানোর জন্য আগ্রহী নন বাস মালিকেরা।

অন্যদিকে রাস্তায় বাস নামাতে চেয়ে রাজ্য পরিবহন দফতরের কাছে মিনিবাস সংগঠনের তরফেও পৃথক ভাবে আবেদন জানানো হয়েছে। তাদের প্রস্তাবিত নতুন ভাড়ার তালিকা হয়েছে, প্রথম ২ কিলোমিটারের ভাড়া হবে ১৪ টাকা। পরবর্তী ৫ কিলোমিটারের ভাড়ার হার ৫ টাকা করে বাড়ানোর প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। ফলে নতুন প্রস্তাব মতো ভাড়া হবে, প্রথম ২ কিলোমিটারের জন্য ১৪ টাকা। দুই থেকে সাত কিলোমিটারের জন্য ১৯ টাকা, সাত থেকে বারো কিলোমিটার ভাড়া ২৪ টাকা, ১২ থেকে ১৭ কিলোমিটার ভাড়া ২৯ টাকা, ১৭ থেকে ২২ কিলোমিটার ৩৪ টাকা, ২২ থেকে ২৭ কিলোমিটার ভাড়া হবে ৩৯ টাকা। সাধারণত মিনিবাস ২৭ থেকে ৩০ আসনের হয়ে থাকে।

মিনিবাস সংগঠন তাদের প্রস্তাবে জানিয়ে দিয়েছে তারা ১২ থেকে ১৪ আসনের যাত্রী নিয়ে প্রস্তাবিত ভাড়ায় বাস চালাতে রাজি। সেক্ষেত্রে তাদের খরচ তারা তুলে নিতে পারবে। মিনিবাস সংগঠনের নেতা প্রদীপ নারায়ণ বোস জানান, “আমাদের ২৫০০ বাস আছে। আমরা আমাদের ভাড়া ও কিলোমিটারের মধ্যে ফারাক করে নতুন ভাড়ার তালিকা জমা দিয়েছি। শুধু কলকাতা নয়, জেলার বাস মালিকরাও বাস চালাতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। আশা করি সরকার আমাদের এই সিদ্ধান্ত মেনে নেবেন।” আগামী সপ্তাহে এই বিষয়ে পরিবহণ দফতরের একটি বৈঠক হওয়ার কথা আছে। বাস মালিকদের বক্তব্য ভাড়া বাড়িয়ে অটো যদি চলতে পারে তাহলে আমাদের ক্ষেত্রে অসুবিধা কোথায়।

করোনা সংক্রমণ রুখতে সামাজিক দূরত্বের বিধি মেনে বাসে ২০ জনের বেশি যাত্রী ওঠানোয় কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। সেই বিধি মেনেই সরকারি বাস পরিষেবা চালু হয়েছে রাজ্যে। কিন্তু বেসরকারি বাস নামেনি। জানা গিয়েছে, এদিন বাস সিন্ডিকেটের তরফে পরিবহণ দফতরকে ভাড়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। আগামী সপ্তাহে তাঁদের সঙ্গে বৈঠকে বসবে পরিবহণ দফতর। যদিও সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী– দু’জনই ভাড়া বাড়ানোর ব্যাপারে গড় রাজি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here