Parul

মহানগর ডেস্ক: অতিমারি আবহে স্কুল বন্ধ। তবুও পুরো ফি দেওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। এমন অভিযোগ বহু অভিভাবকের। মাসখানেক আগে বিষয়টি পৌঁছে সুপ্রিম কোর্টের দরবারেও। মানবিক হওয়ায় আবেদন রেখেছিলেন বিচারপতি।

ads

তামিলনাডুর অভিভাবকদের অভিযোগ, স্কুল বন্ধ থাকার পরেও পুরো ফি দেওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে বেসরকারি স্কুলগুলো৷ একাধিক অভিযোগ পৌঁছেছিল রাজ্য প্রশাসনের কাছে। শেষ পর্যন্ত পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে বড় সিদ্ধান্ত নিল দ্য তামিলনাডু স্কুল এডুকেশন ডিপার্টমেন্ট। তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, অতিমারি পরিস্থিতিতে স্কুল যখন বন্ধ, তখন একশো শতাংশ ফি দেওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই। ৭৫ শতাংশ ফি দিলেই হবে। তাও ইন্সটলমেন্টে।

ডিপার্টমেন্টের পক্ষ থেকে বেসরকারি স্কুল কর্তৃপক্ষগুলোকে জানানো হয়েছে, প্রথম কিস্তিতে ৪০ শতাংশ ফি নিতে হবে। দ্বিতীয় কিস্তিতে বাকি ৩৫ শতাংশ ফি। অতিমারির দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে এপ্রিলের ২৪ তারিখ থেকে তামিলনাডুতে বন্ধ স্কুল। কবে খুলবে সে ব্যাপারে নেই কোনও সদুত্তর। ডিপার্টমেন্টের সিদ্ধান্ত- কিস্তির ৪০ শতাংশ দিতে হবে অগস্টের ৩১ তারিখের মধ্যে। বাকি ৩৫ শতাংশ স্কুল খোলার দু-মাস পরে। অর্থাৎ স্কুল না খোলা পর্যন্ত অভিভাবকদের দিতে হবে ৪০ শতাংশ ফি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here