kolkata bengali news

ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ব্লগের পাল্টা জবাব দিলেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। তিনি বললেন, গত পাঁচবছরে সংবাদমাধ্যম সহ প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে আক্রমণ করেছে বিজেপি। নদীপথে তিনদিনের প্রচারে বুধবার প্রিয়াঙ্কা বলেন, মানুষকে যেন বোকা না ভাবেন প্রধানমন্ত্রী। মানুষ সব দেখছেন। গত পাঁচবছরে সংবাদমাধ্যম সহ প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে আক্রমণ করেছে বিজেপি। তাঁর অভিযোগ, ওরা ক্ষমতার মোহে আচ্ছন্ন থাকেন। ভাবেন, সমালোচকরা নীরব থাকবেন। ভয় পাবেন। কিন্তু আমরা ভয় পাই না। লড়াই চলবে।

কংগ্রেস সহ বিরোধীদের অভিযোগ, গত পাঁচবছরে বিচার ব্যবস্থা, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক, সিবিআই,পরিসংখ্যান দফতর সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংবাদমাধ্যমের উপর বিজেপি সরকার লাগাতার আক্রমণ করেছে। দুর্বল করেছে ওইসব প্রতিষ্ঠানকে। লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে বিরোধীরা বিজেপি সরকারের দুর্নীতির পাশাপাশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে দুর্বল করার বিষয়টিকেও প্রধান অস্ত্রও করেছে। এই ইস্যুতে বিভিন্ন জনসভায় প্রধানমন্ত্রীকে তুলোধনাও করছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। এর প্রতিক্রিয়ায় বুধবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ব্লগে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে পরিবারতন্ত্রের রাজনীতির অভিযোগ তোলেন। মোদী সেখানে লেখেন, ২০১৪ সালে পরিবারতন্ত্রের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছিলেন মানুষ। যখনই রাজনীতিতে পরিবারতন্ত্র ক্ষমতাসীন হয়, তখন আক্রান্ত হয় প্রতিষ্ঠান। সংসদ, সংবাদমাধ্যম, সংবিধান, আদালত, সেনাবাহিনী ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান আক্রান্ত হয়। গান্ধী পরিবারকে আক্রমণ করে মোদী আরও লেখেন, কংগ্রেসে কোনও গণতন্ত্র নেই। নেতার বিরোধিতা করলে দল থেকে বের করে দেওয়া হয়।

১৯৪৭-এর পর প্রতিটি কংগ্রেস সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা দফতরে দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে বলেও লিখেছেন তিনি। তাঁর কটাক্ষ, জিপ, অস্ত্র, সাবমেরিন, হেলিকপ্টার কেনার ক্ষেত্রে ওই একটি পরিবারের মিডলম্যানদের হাত ছিল। দুর্নীতি মামলায় কংগ্রেসের বহু নেতা এখন জামিনে মুক্ত আছেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর ব্লগে ইন্দিরা গান্ধীর বিরুদ্ধেও অভিযোগ করেন। তিনি লেখেন, সংবিধানের নয়, বিচার ব্যবস্থাকে তাঁর অনুগত করে রাখতেন ইন্দিরা। তাঁর সরকার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে দুর্বল করছে, প্রিয়াঙ্কার এই অভিযোগের জবাবে মোদী এদিন লেখেন, প্রধানমন্ত্রীর দফতরের সমান্তরালে ন্যাশনাল অ্যাডভাইসরি কাউন্সিল নামে একটি প্রতিষ্ঠান তৈরি করেছিল ইউপিএ সরকার। এর চেয়ারপার্সন ছিলেন সনিয়া গান্ধী। কংগ্রেস এই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে কী ব্যাখ্যা দেবে জানতে চান প্রধানমন্ত্রী। এর পাল্টা এদিন বিজেপিকে তীব্র আক্রমণ করেন প্রিয়াঙ্কা। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর মাথায় রয়েছে ক্ষমতার চিন্তা। ফলে দুটো ভুল ধারনায় পরিচালিত হন। এক, জনগণকে বিপথে চালিত করেন। দুই, বিরোধীদের ভয় পান। কিন্তু তিনি ভয় পান না বলে জানান প্রিয়াঙ্কা। তাঁর দাবি, প্রধানমন্ত্রী কিছু করতে পারবেন না। যদিও চাইলে তিনি আমাদের আরও হেনস্থা করতে পারেন। কিন্তু তাতে লড়াই বন্ধ হবে না। লড়াই আরও শক্তিশালী করতে হবে। ধারাবাহিক লড়াইয়ের ডাক দেন প্রিয়াঙ্কা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here