মহানগর ডেস্ক: জেল হেফাজতে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি নিয়ে বিক্ষোভে আজও উত্তাল ঢাকা। পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের দফায় দফায় সংঘর্ষে রবিবার পুলিশ ও সাংবাদিক-সহ অন্তত ৫০ জন আহত হন। পুলিশ লাঠি চালিয়ে বিক্ষোভ ছত্রভঙ্গ করতে নামলে পাল্টা পুলিশের দিকে ইট-পাথর উড়ে আসে। পরিস্থিতি সামলাতে কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে হয় পুলিশকে। বিক্ষোভকারীদের দাবি, রবারের গুলিও ছুড়েছে পুলিশ। বিরোধী বিএনপির ছাত্র সংগঠন রবিবার প্রেস ক্লাব সংলগ্ন চত্বরে বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়েছিল। কয়েকশো ছাত্র সেখানে জড়ো হওয়ার পরে পুলিশের এক অফিসার বলেন, অনুমতি না-থাকায় এই কর্মসূচি করা যাবে না। ছাত্রদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ লাঠিপেটা শুরু করে। এক দল ছাত্র মাথা বাঁচাতে প্রেস ক্লাবে আশ্রয় নেন। পুলিশ সেখানে ঢুকে তাঁদের মারধর করে। এর পরে বিক্ষোভকারীরা পাল্টা ইট-পাথর ছোড়া শুরু করেন। তার পরেই পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে থাকে। আটকে পড়া বিক্ষোভকারীদের গ্রেফতার করে ভ্যানেও তোলে।

mustaq
জেল হেফাজতে মৃত্যু হয় মুশতাক আহমেদের।

শাসক আওয়ামি লিগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ দিন কারাগারে লেখকের মৃত্যুতে দুঃখ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু এই বিক্ষোভকে ‘ষড়যন্ত্র করে অশান্তি পাকানোর চেষ্টা’ বলছেন শাসক দলের নেতারা। তাঁদের যুক্তি, জঙ্গিরা যখন একের পর এক লেখক ও ব্লগারের উপরে হামলা করেছে, বিএনপি নিন্দাটুকুও করেনি। এখন আন্দোলনের নামে জনজীবনে অশান্তি সৃষ্টি করতে নেমেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here