news bengali

মহানগর ওয়েবডেস্ক: পুলিশের হাতে জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুতে নিউ ইয়র্ক সহ সারা আমেরিকা উত্তাল হয়ে উঠেছে। হাজার হাজার বিক্ষোভকারী পথে নেমে এসেছেন কৃষ্ণাঙ্গ ফ্লয়েডের হত্যার প্রতিবাদে। বিক্ষোভ–প্রতিবাদ বহু ক্ষেত্রেই সহিংস হয়ে উঠছে। বিক্ষিপ্ত ভাবে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ চলছে বিভিন্ন শহরে। এই প্রতিবাদ নিয়ে অবশেষে মুখ খুললেন ট্রাম্প। টুইট করে তিনি জানালেন, হোয়াইট হাউসের সীমানা অতিক্রম করলে প্রতিবাদীদের স্বাগত জানাতে ভয়ঙ্কর কুকুরের পাল ও সাংঘাতিক অস্ত্র প্রস্তুত ছিল, যা তিনি আগে কখনও দেখেননি।

একাধিক টুইট করে ট্রাম্প এই ঘটনার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। তার মধ্যে শনিবার তিনি তার সমর্থকদের আহ্বান করে লিখেছেন, ”হোয়াইট হাউসের আজকের রাত কি ‘ম্যগা’ রাত হয়ে উঠবে?” ম্যাগা (MAGA) ট্রাম্পের স্লোগান ”মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন”–এর সংক্ষিপ্ত রূপ। গত সোমবার মিনেয়াপোলিসে পুলিশের হাতে নিহত জর্জ ফ্লয়েডের হত্যার প্রতিবাদ শুক্রবার পৌঁছে যায় ওয়াশিংটনে। শনিবার দুপুরে কয়েকশো ভিক্ষোভকারী লেফায়েত স্কোয়ারে জমায়েত হলে হোয়াইট হাউস সাময়িক ভাবে বন্ধ করে দেওযা হয়।

একটি ভিডিও ক্লিপে দেখা গিয়েছে, বিক্ষোভকারীদের পুলিশ সরিয়ে দেওয়ার পর আবার তারা ফিরে আসে এবং অফিসার ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি ও ঘুষোঘুষি চলে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট গোটা ঘটনায় আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থার প্রশংসা করেছেন। যথেষ্ট প্ররোচনা থাকা সত্ত্বেও সংস্থার আধিকারিকরা নিজেদের শান্ত রেখেছিলেন জানিয়ে প্রেসিডেন্ট বলেন, ”আমি ভেতরে ছিলাম, প্রত্যেকটি গতিবিধি দেখেছি, এবং এত নিরাপদ আমি কখনও বোধ করিনি।”
”পেশাদারি দক্ষতায় বিশাল সংখ্যক মানুষের জমায়েত হয়েছে, কিন্তু কেউ (হোয়াইট হাউসের) সীমান অতিক্রম করতে পারেনি। যদি তারা সেটা করত তাহলে তাদের স্বাগত জানাত ভয়ঙ্কর কুকুরের পাল এবং সবথেকে সাংঘাতিক অস্ত্র।” টুইটে ট্রাম্প লেখেন, ”গোয়েন্দা সংস্থার বহু এজেন্ট ঝাঁপিয়ে পড়ার অপেক্ষায় ছিল।”

ওয়াশিংনের মেয়র মুরিয়েল বোসার গোয়েন্দা সংস্থাকে পুলিশি সাহায্য দিতে অস্বীকার করায় ট্রাম্পের তোপের মুখে পড়েছেন। যদিও ওয়াশিংটন পোস্ট জানিয়েছে, দ্বিতীয় দফায় বিক্ষোভকারীদের পুলিশ নিয়ন্ত্রণ করেছে। শুক্রবার ট্রাম্পের ”লুঠ করলে গুলি চলবে” মন্তব্যের জন্য প্রেসিডেন্ট ডেমোক্র্যাটদের সমালোচনার মুখে পড়েন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here