kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, নদিয়া: স্বপ্নে মিলল শিবলিঙ্গ। এক মহিলার এই দাবি ঘিরে সকাল থেকে হইহই কাণ্ড নদিয়ার শান্তিপুরের হরিপুরে। এলাকার মহিলা বাসন্তী দেবনাথ দাবি করেন, গতকাল রাতে তিনি স্বপ্ন দেখেন তার বাড়ির সন্নিকটে একজনের জমিতে একটি শিবলিঙ্গ পোঁতা আছে। কেউ জানে না সেই কথা। ভক্তবৃন্দের মাঝে এনে ওই শিবলিঙ্গটি মন্দির বানিয়ে স্থাপন করে পুজো করলে সমগ্র হরিপুরবাসীর মঙ্গল হবে। স্বপ্নে তিনি নাকি আরও জানতে পারেন, সামনে শ্রাবণ মাসে এখানেই এবার থেকে বাবার জল ঢালার ব্যবস্থা করা হোক।

বাসন্তীদেবী দাবি করেন, তার স্বপ্ন দেখা এই কথা বাস্তব। তিনি বলেন, সকালে স্নান করে এলাকার সকলকে জানিয়ে ওই এলাকায় খুঁড়ে বের করা হয় ১৫ ইঞ্চি লম্বা ও ১২ ইঞ্চি ব্যাসের শিবলিঙ্গটি। এই কথা জানাজানি হতেই বহু মানুষ ভিড় করতে থাকেন সেখানে। শিবলিঙ্গটি ঘিরে শুরু হয়ে যায় পুজোপাঠের আসর। এলাকাবাসী কীর্তনের আসর বসিয়ে প্রসাদ বিলি করতে থাকে। এই কথা জানতে পেরে দ্রুত পৌঁছে যায় স্থানীয় প্রশাসন। বহু মানুষের ভিড় হয়। তাদের সামাল দিতে বেগ পেতে হয় পুলিশকে। ওই পুলিশ সেখানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার ব্যবস্থা করে।

জানা গিয়েছে, যে জমিতে শিবলিঙ্গটি পাওয়া গিয়েছে বলে দাবি করা হচ্ছে, সেই জমিটি কবি যতীন্দ্রনাথ সেনগুপ্তের আদি ভিটে। পরে এই জমিটি কিনে নেন জলেশ্বর ঘোষ নামে এক ব্যক্তি। দীর্ঘদিন তিনি জমিটি ফেলে রাখেন। সম্প্রতিকালে ফণী মিস্ত্রি নামে এক ব্যক্তি সেখানে গজিয়ে ওঠা জঙ্গলের একাংশ কেটে বাড়ি নির্মাণ শুরু করেন। সেই জমিতে শিবলিঙ্গ মিলেছে বলে দাবি করতে থাকেন এলাকার লোকজন।

যদিও বিষয়টি স্থানীয় বিজ্ঞানকর্মী এবং জনগণের একাংশ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন। তাদের দাবি, এলাকায় মন্দির তৈরি করার জন্য এই আজগুবি গল্প ফাঁদা হয়েছে। পারস্পরিক এই চাপানউতোরের মাঝে ওই শিবলিঙ্গটি দেখার জন্য ভিড় করেছেন বহু মানুষ। এখন সেখানে মহাসমারোহে চলছে পুজোপাঠের আসর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here