kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, পুরুলিয়া: অবশেষে উদ্যোগ নিল প্রশাসন। গাছের মগডালে কোয়ারেন্টাইনে থাকা সাত যুবককে নীচে নামানো হল। গ্রামবাসীর আপত্তিতে চেন্নাই ফেরত ওই সাত যুবক বাধ্য হয়ে কোয়ারেন্টিনে ছিলেন গাছের মগডালে। আর তাদের নীচে নামাতে মানবিক মুখ হয়ে উঠলেন বলরামপুর ব্লকের বিডিও ধ্রুবপদ শাণ্ডিল্য৷ বিডিও এবং পুলিশ আধিকারিক গিয়ে তাদেরকে গাছ থেকে নামিয়ে এনে গ্রামের একটি আইসিডিএস সেন্টারে থাকার ব্যবস্থা করেন।

kolkata news

বিডিও নিজের উদ্যোগে গ্রামে গিয়ে সাত যুবকের জন্য ওই অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে আলো, পাখা, টয়লেটের ব্যবস্থা-সহ ট্যাঙ্কারে করে জলের ব্যবস্থা করে দেন। এ ছাড়াও খাদ্যসামগ্রীও দিয়ে আসেন। বলরামপুর ব্লকের বিডিও-র সঙ্গে যান ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক আবির চন্দ্র। প্রত্যেকের সঙ্গে আলাদা আলাদা কথা বলে তাদের শারীরিক অবস্থার খোঁজ নেওয়ার পর আপাতত তাদের ওই সেন্টারে থাকতে বলেন। এবিষয়ে চেন্নাই ফেরত যুবক বিজয় সিং লায়া বলেন, আমরা নিজেরাই গ্রামবাসীদের উদ্যোগে ওই ভাবে গাছের ওপর থাকার জন্য গিয়েছিলাম। তবে বিডিও সাহেব আমাদের সবরকম ব্যবস্থা করায় আমাদের এখানে সুবিধা হয়েছে। আমরাও আর কয়েকটা দিন এখানেই থাকব। তারা সকলেই বলরামপুরের বিডিও পুলিশকে ধন্যবাদ জানান।

উল্লেখ্য, কয়েকমাস আগে বলরামপুর ব্লকের ভাঙিডি গ্রামের সাত যুবক চেন্নাইয়ে কাজ করতে যান। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের প্রকোপ শুরু হওয়ায় তাঁরা কাজ ছেড়ে ট্রেন ধরে গ্রামে ফেরার উদ্দেশ্য রওনা দেন। ভিনরাজ্য থেকে ফিরলে যেহেতু ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, গ্রামে আলাদা কোনও ঘর না থাকায় চেন্নাই ফেরত ওই যুবকদের গ্রাম ঢোকার মুখে গাছের ডালে খাটিয়া দিয়ে অস্থায়ী ঘর তৈরি করে দেওয়া হয় থাকার জন্য। সেখানে তাদের কোয়ারেনটাইনের ব্যবস্থা করা হয়। এই খবর প্রকাশিত হতেই নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। আজ তাদের গাছ থেকে নামিয়ে গ্রামের আইসিডিএস কেন্দ্রে আলাদা থাকার বাবস্তা করে বলরামপুর ব্লক প্রশাসন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here