bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: প্রথম দুই ম্যাচে ড্রয়ের পর নেরোকাকে চার গোল দিয়ে জয়ে ফিরেছে ইস্টবেঙ্গল। ফলে বেশ খানিকটা আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে নিয়েছে আলেহান্দ্রো ব্রিগেড। আর আজ দ্বিতীয় হোম ম্যাচে লাল হলুদের সামনে এইবারই প্রথম আই লিগ খেলা ট্রাউ এফসি। এখনও পর্যন্ত দুটি ম্যাচ খেলে দুটিতেই হেরেছেন ডগলাসের দল। ফলে লিগের লাস্ট বয়ের বিরুদ্ধে আজও বড় ব্যবধানে জয় চাইছে কোয়েস ইস্টবেঙ্গল।

কিন্তু সমস্যা হল এই ম্যাচে নেই কোলাডো। তাঁকে ২০ ডিসেম্বর পর্যন্ত অন্তর্বর্তী নির্বাসনে পাঠিয়েছে এআইএফএফ। পঞ্জাব ম্যাচে এক বল বয়কে বল দিয়ে আঘাত করার অভিযোগ তার বিরুদ্ধে। সেই জন্য আজ মাঠের বাইরেই তিনি। আর কোলাডো যে ইস্টবেঙ্গলের হৃদপিণ্ড তা এতদিনে সকলেই বুঝে গিয়েছেন। ফলে তাঁকে ছাড়া যেকোনো ম্যাচ খেলতে নামা মানে যে বেশ চাপের সেটা জানেন আলেহান্দ্রো নিজেও।

তবে কোলাডোর এই শাস্তি পাওয়া নিয়ে কিছুটা হতাশ লাল হলুদ কোচ নিজেও। ‘পঞ্জাব ম্যাচে রেফারির কিছু সিদ্ধান্তে হতাশ হয়ে পরেছিল কোলাডো। সেই জন্য বলে লাথি মেরে রাগের বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছিল। অন্যকোনও উদ্দেশ্য ওর ছিল না। তবে এই ম্যাচে যখন ও নেই, তখন তা নিয়ে আর ভাবছি না। দলে আরও অনেক ফুটবলার আছে’, সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছিলেন আলেহান্দ্রো।

তাহলে কোলাডোর বিকল্প কে? অবশ্যই খুয়ান মেরা। কোলাডোর তুলনায় অনেক বেশি শৈল্পিক ফুটবল খেলেন তিনি। বল ডিস্ট্রিবিউশন বা বল ড্রিবলিংও মারাত্মক। ফলে আজ মাঝমাঠে প্লে মেকারের মূল ভূমিকার সঙ্গে সঙ্গে আক্রমণেও আরও পজিটিভ রোলে দেখা যাবে তাঁকে। নিজের দল নিয়ে আত্মবিশ্বাসী হলেও বিপক্ষকে সম্মান করছেন লাল হলুদের স্প্যানিশ কোচ। তিনি জানান, ‘ট্রাউ হয়তো এখনও জয় পায়নি। কিন্তু দল হিসেবে বেশ ভাল। কোয়ালিটি ফুটবলার অনেক আছেন। আমরা আত্মতুষ্টিতে ভুগতে চাই না। বিপক্ষকে সম্মান করেই তিন পয়েন্টের জন্য ঝাঁপাবো।’

অন্যদিকে, ট্রাউ এখনও কোনও পয়েন্ট না পেলেও দলের পজিটিভ ফুটবল খেলা নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত ফুটবল বিশেষজ্ঞরা। মোহনবাগান ম্যাচে আগাগোড়া ওপেন ফুটবল খেলেছে পাহাড়ি দলটি। গোল খেলেও কখনও ডিফেন্সের মোড়কে দলে ডুবে যেতে দেননি ডগলাস। দলে রয়েছে একাধিক বাঙালি ফুটবলার। সেই বাঙালি ব্রিগেডকে হাতিয়ার করেই আজ ইস্টবেঙ্গলের থেকে পয়েন্ট কাড়ার আশায় ডগলাস বাহিনী।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here