ডেস্ক: সুপার কাপ খেলা নিয়ে ইস্টবেঙ্গলের আদি বনাম নব্য কর্তাদের দ্বন্দ্ব অব্যাহত। দুইদিন আগে কার্যকরী কমিটির বৈঠকের পর আদি কর্তারা জানিয়ে দিয়েছিলেন, সুপার কাপ খেলবে লাল-হলুদ। কিন্তু তারপরেও মঙ্গলবার বিদ্রোহী ক্লাবগুলির সভায় যোগ দিলেন কোয়েস কর্তা অজিত আইজ্যাক। এই নিয়েই প্রচন্ডভাবে ক্ষুব্ধ ইস্টবেঙ্গলের আদি কর্তারা।

গতবছর মরশুমের শুরুতে ঘটা করে ইনভেস্টর এনেছিল ইস্টবেঙ্গল। কিন্তু বছর ঘুরতে না ঘুরতেই বিভিন্ন ইস্যুকে কেন্দ্র করে দূরত্ব বাড়তে থাকে ইস্টবেঙ্গল ও কোয়েস কর্তাদের। সংঘাত চরমে পৌঁছায় সুপার কাপ খেলাকে কেন্দ্র করে। আই লিগের সঙ্গে বিমাতৃসুলভ আচরণের জন্য ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয় আই লিগের দলগুলি। এক সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে ফেডারেশন সভাপতি প্রফুল্ল প্যাটেলকে চিঠি দেন তারা। কিন্তু সেই চিঠি জবাব দেননি ফেডারেশন প্রধান। এরপরই ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগানসহ আই লিগের একাধিক ক্লাব জানিয়ে দেয় তারা সুপার কাপ খেলবে না।

 

কোয়েসের এই একতরফা সিদ্ধান্ত কোনও ভাবেই মেনে নিতে পারেননি ইস্টবেঙ্গলের আদি কর্তারা। সোমবার এক বৈঠকের পর দেবব্রত সরকার, কল্যাণ মজুমদাররা জানিয়ে দেন ইস্টবেঙ্গল সুপার কাপ খেলবে। সেই মতো একটি চিঠি তারা কোয়েস চেয়ারম্যান অজিত আইজ্যাককে পাঠান। এত কিছুর পরও মঙ্গলবার বিদ্রোহী ক্লাবগুলির বৈঠকে যোগ দেন অজিত বাবু। ব্যাপারটি মোটেও ভালোভাবে নেননি ইস্টবেঙ্গলের আদি কর্তারা। তাঁদের মতে, এই পদক্ষেপ নিয়ে আদতে ইস্টবেঙ্গল ক্লাবকে অসম্মানিত করেছেন অজিত আইজ্যাক। এখনও পর্যন্ত চেন্নাই-মিনার্ভা ম্যাচ নিয়ে তদন্ত শেষ হয়নি। তার আগে চেন্নাই কর্তাদের সঙ্গে অজিত আইজ্যাকের এক সঙ্গে এক বৈঠকে বসা নিয়ে ক্ষুব্ধ আদি কর্তারা। ক্লাবের অন্দরে গুঞ্জন, এরকম চলতে থাকলে কোয়েস গ্রুপের সঙ্গে ইস্টবেঙ্গলের গাঁটছড়া থাকবে কিনা, তা নিয়ে চিন্তাভাবনা করবেন ইস্টবেঙ্গল কর্তারা।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here