Parul

মহানগর ডেস্ক: বর্তমানে দেশের সংক্রমণের সংখ্যা স্বস্তিদায়ক থাকলেও চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা। কারণ বিশেষজ্ঞ মহলের মতে খুব শীঘ্রই আছড়ে পড়তে পারে তৃতীয় ঢেউ। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই সিঁদুরে মেঘ দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। করোনা সংক্রমনের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞ মহল। কারণ করোনার R-value বাড়তে শুরু করেছে।

ads

চেন্নাইয়ের ‘ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সাইন্স’ এর গণিত বিশেষজ্ঞরা এই বিষয়ে দেশবাসীকে সতর্ক করেছে। পরিস্থিতি কিছুটা স্বস্তিদায়ক হলেও, আবারো ধীরে ধীরে খারাপ হচ্ছে পরিস্থিতি। কিন্তু কেন এই পরিস্থিতি আবারও ধীরে ধীরে খারাপ হচ্ছে তা নিয়েই চিন্তিত গবেষকেরা। এবার প্রশ্ন আসছে কি এই R-value? এই R-value হলো একটি গাণিতিক একক। যার দ্বারা সংক্রমণের হার বৃদ্ধি হচ্ছে না হ্রাস পাচ্ছে সেই হিসাব বোঝা যায়। অর্থাৎ একজন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে কতজন মানুষ করোনা দ্বারা সংক্রমিত হচ্ছেন সেই হিসেবটা বলে দেয় R-value।

সেই হিসেব অনুযায়ী, গত ৩০ জুন করোনার R-value যেখানে ছিল ০.৭৮। সেখানে জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহের শেষেই তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ০.৮৮। এই এককের মান ১ এর নিচে থাকলে স্বস্তিদায়ক। কিন্তু ১ এর ওপরে থাকলেই তা চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। ১ এর নিচে মান রয়েছে মানেই দেশে অতিমারীর সংখ্যা কমছে। কিন্তু বাড়ছে সংক্রমনের সংখ্যা।

কিন্তু সেই R-value আবারও মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে। চলতি বছর ফেব্রুয়ারি থেকেই বাড়তে শুরু করেছিল R-value। আর মার্চে গিয়ে সেটি তীব্র আকার ধারণ করে। আবারও এই আর ভ্যালু বাড়তে থাকার কারণে সতর্ক করছেন গবেষকেরা। যেখানে সংক্রমণ অনেকটাই কমে এসেছে, সেখানে আবারো কি করে আর ভ্যালু বাড়ছে সেই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। এতেই এক গবেষক জানিয়েছেন, কেরল ও মহারাষ্ট্রে এখনো করোনায় অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়াও দেশের আরও কিছু রাজ্যে যেমন, তামিলনাড়ু ও উত্তরাখণ্ডে R-value বাড়ছে, যা প্রধান চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here