kolkata bengali news

ডেস্ক: রাফালের সমস্ত নথি চুরি হয়ে গিয়েছে শীর্ষ আদালতে কেন্দ্রের এহেন দাবির পর, কেন্দ্রকে তীব্র তিরস্কারের পাশাপাশি রাফাল মামলা ১৪ মার্চ পর্যন্ত পিছিয়ে দিল দেশের শীর্ষ আদালত। বুধবার শীর্ষ আদালতে টানা ৩ ঘন্টার শুনানিতে কেন্দ্রকে ব্যাপক তিরস্কার করে শীর্ষ আদালত। কেন্দ্রের সমালোচনা করে জানানো হয়, ‘আপনারা কি বোফর্স মামলার ক্ষেত্রেও বলবেন নথি চুরি হয়ে গিয়েছে?’

প্রসঙ্গত, এদিন শুনানির শুরুতেই কেন্দ্রের তরফে শীর্ষ আদালতকে অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে ভেনুগোপাল জানান, রাফালের সমস্ত নথি চুরি হয়েছে। মনে করা হচ্ছে সেটা করেছে কোনও সরকারি অফিসারই। এবং রাফালের সমস্ত নথি চুরি করে পাঠানো হয়েছে দ্য হিন্দু সংবাদ মাধ্যমকে। এদিন আদালতে ওই সংবাদপত্রের কাটিংও তুলে ধরেন অ্যাটর্নি জেনারেল। রাফালের নথি চুরি গিয়েছে জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে সেগুলি দেখানো যাচ্ছে না। পাশাপাশি, তিনি এটাও জানিয়ে রাখেন রাফালের নথি চুরির প্রেক্ষিতে গোপনিয়তা আইনে তদন্ত চলছে। এরপরই কেন্দ্রকে তিরস্কার করে আদালত। এরপরই কেন্দ্রের উপর রীতিমতো বিরক্ত হয়ে শীর্ষ আদালত জানিয়ে দেয় আগামী ১৪ মার্চ হবে রাফাল মামলার শুনানি।

উল্লেখ্য, গত ১৪ ডিসেম্বর রাফাল মামলায় শীর্ষ আদালত রায় দেয় রাফাল যুদ্ধ বিমান কেনা নিয়ে কোনও প্রশ্ন ওঠার জায়গা নেই। কোনও তদন্তের প্রয়োজন নেই রাফাল নিয়ে কারণ কোনও দুর্নীতিই হয়নি এই চুক্তিতে। আদালতের এই রায়ের প্রেক্ষিতে রায় পুনর্বিবেচনার আর্জি জানিয়ে শীর্ষ আদালতে পিটিশন দায়ের করেন যশবন্ত সিনহা, অরুণ সৌরি ও আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ। শুরু থেকেই রাহুলের অভিযোগে, রাফাল নিয়ে চূড়ান্ত দুর্নীতি করেছে মোদী সরকার। নিজের ব্যবসায়িক বন্ধু অনিল আম্বানিকে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার জন্য মানুষের টাকা চুরি করা হয়েছে। এ বিষয়ে বেশ কয়েকটি প্রশ্ন ছুঁড়ে রাহুল বলেন, ১২৬ টি বিমানের যে চুক্তি ছিল তা হঠিয়ে কেন ৩৬ টি বিমান কেনা হল? কেন হ্যালকে সরিয়ে রাফালের বরাত দেওয়া হল অনিল আম্বানির সংস্থাকে। চুক্তির আগে যে কোম্পানির বাস্তবে কোনও অস্তিত্বই ছিল না। বিমানের দাম যা ছিল ইউপিএ আমলে তা হঠাৎ এত বাড়িয়ে দেওয়া হল কেন?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here