kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: আমফানের ক্ষতিপূরণ দেওয়া নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগে জেলায় জেলায় দলীয়স্তরে স্থানীয় নেতা-কর্মীদের একাংশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে এরাজ্যের শাসক দল। আর তা নিয়েই শুক্রবার হাওড়া জেলা নেতৃত্বের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের কাছে নিজের ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন রাজ্যের বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘দলকে সত্যিই যদি দুর্নীতিমুক্ত করতে হয়, তা হলে সবাইকে ধরতে হবে। শুধু চুনোপুঁটি ধরলেই হবে না, রাঘব-বোয়ালদের ধরতে হবে। তা না হলে মানুষের কাছে ভুল বার্তা যাবে।’

শুক্রবার রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমালোচনার তির ছিল হাওড়ায় দলের জেলা সভাপতির বিরুদ্ধেও। রাজীববাবুর ওই মন্তব্য ঘিরে রীতিমতো সোরগোল পড়ে যায় রাজনৈতিক মহলে। শাসক শিবিরের অন্দরেও গুঞ্জন শুরু হয় রাজীববাবুর ওই মন্তব্য ঘিরে। তৃণমূলের হাওড়া জেলা সদর সভাপতি তথা মন্ত্রী অরূপ রায় জেলা নেতৃত্বের বিরুদ্ধে রাজীববাবুর ওই অভিযোগ নিয়ে পাল্টা মন্তব্য করেন। পরে এনিয়ে কলকাতায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে এটি দলের বিষয় বলে এড়িয়ে যান মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও এই ইস্যুতে মন্তব্য করেন।

গতকালের এই রাজনৈতিক উত্তেজনার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই হাওড়ায় অরূপ রায়ের নেতৃত্বে দল ঐক্যবদ্ধ রয়েছে বোঝাতে আজ রবিবার বিকালে হাওড়ায় দলের সব সাধারণ সম্পাদক একযোগে সাংবাদিক বৈঠক ডেকে বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করেন। তাঁদের অভিযোগ, হাওড়ায় তৃণমূলকে দুর্বল করার জন্য বিজেপি এই চক্রান্ত করছে। একটি বিশেষ রাজনৈতিক দলের  মদতেপুষ্ট একটি সংবাদমাধ্যম এই খবর প্রচার করেছে। কেউ কেউ বিজেপির তামাক খেয়ে হাওড়ায় দলের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করার চেষ্টা করছে। তবে এতে বিজেপি’র খুশি হওয়ার কোনও কারণ নেই। হাওড়ায় তৃণমূল কংগ্রেস ঐক্যবদ্ধ রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here