kolkata bengali news

ডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের আমেঠি চিরকালের গড় কংগ্রেসের। গতবারও এই কেন্দ্র থেকে সাংসদ হয়েছেন বর্তমান কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। গতবারের মোদী ঝড়ে খড়কুটোর মতো উড়ে যাওয়া কংগ্রেস এবার নিজেদের গুছিয়ে এনেছে ভালোমতই। তবে লড়াইটা থেকে গিয়েছে আগের মতোই কঠিন। সেই লড়াইয়ে টক্কর দিতে একটু অন্যরকম পরিকল্পনা নিলেন কংগ্রেস ভাপতি রাহুল গান্ধী। আমেঠির পাশাপাশি, এবারের লোকসভা নির্বাচনে কেরলের ওয়েনাদ থেকেও প্রার্থী হিসাবে দাঁড়াবেন তিনি। রবিবার সকালে এমনই ঘোষণা করে দিলেন কংগ্রেসের বরিষ্ঠ নেতা একে অ্যান্টনি।

এদিন সকালে সাংবাদিকদের সামনে কংগ্রেস নেতা অ্যান্টনি জানান, ‘এবার নির্বাচনে একইসঙ্গে দুই আসন থেকে লড়াইয়ে নামবেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। যার একটি আমেঠি ও অন্যটি ওয়েনাড়।’ তবে কংগ্রেসের এই ঘোষণার পর কংগ্রেসকে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিজেপি। বিজেপির দাবি, আমেঠিতে এবার হারবেন বুঝে গিয়ে অন্য জায়গায় সুরক্ষিত আসন খুঁজলেন রাহুল। তবে ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে আমেঠি থেকে রাহুল গান্ধীর প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন বিজেপির স্মৃতি ইরানী। তবে সেবার রাহুলের কাছে হারতে হয় স্মৃতিকে। এবারেও আমেঠি থেকেই লড়ার কথা রয়েছে স্মৃতির। তবে অন্য আসনে দাঁড়ানোর বিষয়ে গত ২৩ মার্চই অবশ্য রাহুলকে কটাক্ষ করেছিলেন স্মৃতি। অন্য আসনে রাহুলের দাঁড়ানোর জল্পনা যখন রাজনৈতিক মহলে ঘুরছিল তখন স্মৃতি বলেন, ‘রাহুল হারবেন বুঝে খুঁজে চলেছেন অন্য বিকল্প পথ।

যার জবাব দিতে অবশ্য বেশি সময় নেয়নি কংগ্রেস। স্মৃতির জবাব দিয়ে কংগ্রেসের মুখপত্র রণদীপ সুরজেওয়ালার বলেন, ‘মোদী কেন তবে গুজরাত ছেড়ে বারাণসী থেকে নির্বাচনে লড়ছেন? তবে কি গুজরাতের আসনে আত্মবিশ্বাসী নন মোদী?’ উল্লেখ্য, কংগ্রেসের কাছে বরাবরই শক্তঘাটি কেরলের ওয়েনাড়। ২০০৯ ও ২০১৪ দুই বারই এই আসন থেকে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেছেন কংগ্রেস নেতা এমআই শাহানওয়াজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here