মহানগর ওয়েবডেস্ক: ভারী বৃষ্টিতে ডুবছে হিমাচলের একাংশ৷ আটকে কমপক্ষে ২০০০ জন মানুষ৷ এদের মধ্যে বেশিরভাগই আটকে রয়েছেন লাহুল-স্পিতিতে৷ ধস ও বন্যায় মানালি-লেহ ও মানালি-স্পিতি হাইওয়ের বিভিন্ন অংশ বন্ধ রয়েছে৷

লাহুলের সিস্সু ও কোকসারের মাঝে আটকে রয়েছেন এক হাজারেরও বেশি মানুষ ও ৪০০ গাড়ি। গ্রামফু ও কাজারের মাঝে আটকে ৩০০-রও বেশি পর্যটক। সিস্সুর কাছে আটকে ভারতীয় সেনার প্রায় ৪০টি লাদাখগামী গাড়ি৷ ধস ও তুষারপাতের জেরে চন্দ্রতাল লেক থেকে সোমবার ১২৭ জন পর্যটককে উদ্ধার করা হয়েছে। তাঁদেরকে উদ্ধারের পর কাজায় পাঠানো হয়েছে।

Image result for himachal pradesh tourist standard in flood

প্রবল বৃষ্টির জেরে চম্বা শহরে আটকে রয়েছে প্রায় ৫৫টি হিমাচলপ্রদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশনের বাস৷ এরমধ্যে ১১টি বাস আটকে রয়েছে ভারমুরে৷ এদিকে সিমলায় এখনও পর্যন্ত প্রায় ৯০ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়ে গিয়েছে৷ ডেপুটি কমিশনার অমিত কাশ্যপ জানিয়েছেন, সিমলায় ১২ জনেএর মৃত্যু হয়েছে৷ মেঘভাঙা বৃষ্টির জেরে ২৬০টি রাস্তা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে৷

বন্যায় ক্ষয়তক্ষতি মেটাতে বিশেষত রাস্তা পুনর্গঠন, জল ও বিদ্যুত্‍‌ সরবরাহ ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে সোমবার ১৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছেন হিমাচলের মুখ্যমন্ত্রী জয় রাম ঠাকুর। যত দ্রুত সম্ভব কালকা-শিমলা, পাঠানকোট-মান্দি-মানালির মতো গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় সড়কগুলি থেকে ধ্বংসস্তূপ সরানোর নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here