FotoJet-53

ডেস্ক: সিবিআই-এর গ্রেফতারির আবেদনের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে পাল্টা হলফনামা দায়ের করলেন কলকাতার প্রাক্তন নগরপাল রাজীব কুমার। শীর্ষ আদালতে জমা দেওয়া হলফনামায় আত্মপক্ষ সমর্থন করে তিনি দাবি করেছেন, সারদা তদন্তে সিবিআই পক্ষপাতিত্ব করছে। শিলং-এ সিবিআই সমুখে জেরার উপস্থিত হওয়ার পাশাপাশি তদন্তে সহযোগিতা করা সত্ত্বেও তাঁকে কেন গ্রেফতার করার তোরজোড় চলছে, জানতে চেয়েছেন রাজীব। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার বিরুদ্ধে রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশপ্রণোদিত হয়ে কাজ করারও অভিযোগ তুলেছেন প্রাক্তন সিপি।

সারদা মামলায় তদন্তের জন্য যে সিট গঠিত হয়েছিল, তার নেতৃত্বে ছিলেন রাজীব কুমার। সেই সময় নাকি তিনি সুদীপ্ত সেন ও দেবযানির মধ্যে হওয়া কথোপকথনের বেশ কিছু কল রেকর্ডস লোপাট করে দেন। এমনটাই অভিযোগ রাজীবের বিরুদ্ধে। এই মামলায় এয়ারটেল-ভোডাফোনের কাছে কল ডিটেলস চাইলেও তা দিয়ে সাহায্য করেনি কর্তৃপক্ষ। এরপরই তাঁকে গ্রেফতার করতে উদ্যত হয় সিবিআই। প্রাক্তন সিপির বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হয়, তিনি নাকি সিবিআই তদন্তে সহযোগিতা করেননি ও বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে গিয়েছেন। এখানেই রাজীব কুমার পাল্টা জানিয়েছেন, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশেই টানা ৫ দিন সিবিআই তদন্তের মুখোমুখি হয়েছিলেন তিনি। সম্পূর্ণ তদন্তের ভিডিও রেকর্ডিং-ও রয়েছে। চাইলে সেগুলিও দেখতে পারে আদালত। তাহলে এ হেন পরিস্থিতিতে গ্রেফতারির প্রশ্ন আসবে কেন?

নিজের জমা দেওয়া হলফনামায় সুপ্রিম কোর্টের সামনে একাধিক প্রশ্নও তুলে ধরেছেন রাজীব কুমার। যেখানে তাঁর বিরুদ্ধে উঠে আসা তথ্যপ্রমাণ নষ্টের অভিযোগও নস্যাৎ করেছেন তিনি। রাজীব কুমার দাবি করেছেন, সারদা মামলায় কল রেকর্ডের প্রমাণ ফরেনসিক অডিটের জন্য বিধাননগর থানা সেবিকে অনুরোধ জানিয়েছিল। এখানেই রাজীবের প্রশ্ন, যদি তথ্য গোপন করা হত তবে বিধাননগর থানা নিজে কেন অনুরোধ জানাত? একই সঙ্গে তিনি আরও জানতে চেয়েছেন, সিবিআই যদি মনে করে থাকে তথ্যপ্রমাণ নষ্ট করা হয়েছে তবে আগে কেন নিম্ন আদালতের নজরে তারা বিষয়টি আনেননি? নিজের হলফনামায় রাজীব দাবি করেছেন, সিবিআইয়ের হলফনামার বয়ান বারবার পাল্টে যাওয়াই প্রমাণ করছে নির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে কাজ করছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here