মহানগর ওয়েবডেস্ক: কৃষি বিলের বিরোধিতায় রাজ্যসভা থেকে সাসপেন্ড করা ৮ সাংসদের সাসপেনশন প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত রাজ্যসভা বয়কট করার সিদ্ধান্ত নিল বিরোধীরা। মঙ্গলবার কংগ্রেস নেতা গুলাম নবি আজাদ জানিয়ে দিয়েছেন, এই সাংসদদের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করতে হবে রাজ্যসভার চেয়ারম্যানকে। তবেই অধিবেশনে অংশ নেবেন বিরোধীরা। গত রবিবার রাজ্যসভায় কৃষি বিল পাশ হওয়ার সময় ‘অভব্য’ আচরণের অভিযোগ তুলে তৃণমূল কংগ্রেসের ডেরেক ও’ব্রায়েন সহ এই আট বিরোধী সাংসদকে সাসপেন্ড করেন চেয়ারম্যান। তবে তারা প্রথমে রাজ্যসভা কক্ষ ছেড়ে বের হননি। এরপর সংসদে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে সোমবার তারা রাতভর ধর্না দেন।

রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা গুলাম নবি আজাদ এদিন সাসপেন্ড হওয়া সাংসদদের সঙ্গে দেখা করেন এবং তাদের দাবিগুলো সামনে আনেন। আজাদ বলেন, ‘আমরা কংগ্রেসের পক্ষ থেকে রাজ্যসভার সামনে তিন দফা দাবি পেশ করেছি। প্রথমত, সরকার একটি নতুন বিল নিয়ে আসুন। যেখানে নিশ্চিত করা হবে যে কোনও বেসরকারি কোম্পানি ন্যূনতম সহায়ক মূল্যের কম দামে চাষীর থেকে জিনিস কিনতে পারবে না। দ্বিতীয়ত, স্বামীনাথন ফর্মুলা অনুসরণ করে গোটা দেশের ক্ষেত্রে চাষীদের জন্য ন্যূনতম সহায়ক মূল্য কেন্দ্র নির্দিষ্ট করুক। তৃতীয় হচ্ছে, ভারত সরকার বা ফুড করপোরেশনকে নিশ্চিত করতে হবে যাতে নির্ধারিত ন্যূনতম সহায়ক মূল্য দরে চাষীদের ফসল কেন হয়।’ এই তিন দফা দাবি পূরণ না হলে রাজ্যসভার অধিবেশনে বিরোধীরা অংশ নেবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে।

এছাড়াও রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা বলেন, ‘চতুর্থ গুরুত্বপূর্ণ আরেকটি বিষয় আমি জানিয়েছি, তা হল- যেই আট সাংসদকে সাসপেন্ড করা হয়েছে তাদের সাসপেনশন যেন প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। যদিও এটা আমাদের দাবি নয়, আবেদন।’ আজাদ আরও বলেন, মনে হচ্ছে সরকারের অন্দরে তাদের নিজেদের মধ্যেই বোঝাপড়ার অভাব রয়েছে। কেননা একদিন আগেই কৃষি বিল নিয়ে পুরো আলোচনা ন্যূনতম সহায়ক মূল্য নিয়েই হল। একদিন পর আবার সরকার নতুন কিছু সিদ্ধান্ত নিয়ে ন্যূনতম সহায়ক মূল্যের ঘোষণা করে দিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here